তিস্তায় বন্যা, ভেসে গেছে ১৫ গ্রাম

রংপুর ব্যুরো: ওপারের ঢলে ফুলে ফেঁপে উঠেছে উত্তরের তিস্তা। ব্যারেজ পয়েন্টে পানি বিদপসীমা ছুঁই ছুঁই করছে। এতে রংপুর, নীলফামারী ও লালমনিরহাটের নিম্নাঞ্চলের ৮ ইউনিয়নের ১৫ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ডুবে গেছে ফসলি জমি, ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। বিধস্ত হয়েছে অস্থায়ী বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ।

তিস্তা হঠাৎ রাক্ষুসি হয়ে উঠবে ভাবতে পারেননি জেলার গংগাচড়া উপজেলার কোলকোন্দ ইউনিয়নের চরবাসী। নদীতে দু’কুল ছাপিয়ে পানি বয়ে যাচ্ছে। ভেঙে গেছে এলাকাবাসীর স্বেচ্ছাশ্রমে তৈরি বিনবিনার চরের আধা কিলোমিটার মাটির বাঁধ। এতে ইউনিয়নের বিনবিনার চর, আউলিয়ার হাট, পূর্ব বিনবিনা, বাগেরহাট, নারকেল তলা ও সেরাজুল মার্কেটে পানি ঢুকেছে।

বিনবিনার চরের বাসিন্দা ইদ্রিস আলী আতাউর রহমান, মাহফুজার রহমান ও ৫ নং ওয়ার্ড সদস্য নুরুন্নবী ভূট্ট জানালেন, বাঁধ না থাকায় গত বছর বন্যায় ক্ষতবিক্ষত হয়েছিলো পুরো ওয়ার্ড। সেই ক্ষতি এখনও কাটিয়ে উঠতে পারেনি এলাকাবাসী। বিনবিনায় একটি স্থায়ী বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মানে প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে ধরনা দিয়েও কোন লাভ হয়নি তাদের। ফলে চলতি শুস্ক মৌসুমে গ্রামবাসী ও ইউনিয়ন পরিষদ মিলে সেচ্ছায় এক কিলোমিটার মাটির বাঁধ নির্মাণ করেন তারা।

কিন্তু জৈষ্ঠ্যের বন্যায় সেই কস্টের বাঁধ গিলে খেয়েছে রাক্ষুসি তিস্তা। বাঁধটি ধরে রাখতে কোন দপ্তরের সহযোগিতা না পেয়ে শনিবার ভোর থেকে এলাকাবাসী চেষ করেও শেষ রক্ষা হয়নি বাঁধের। দুপুরের মধ্যে আধা কিলোমিটার বাঁধ নদীর পেটে গেছে। হু-হু করে পানি ঢুকে পরে গ্রামে। এতে বোরো ধান, ভূট্টা, বাদাম, পাট তলিয়ে যায়। ভেসে যায় শতাধিক পুকুরের মাছ।

বানের পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার খালিশা চাপানী, জলঢাকা উপজেলার পূর্ব ডাউয়াবাড়ি, লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার উত্তর ডাউয়াবাড়ি, তাতিকাপাড়া, হলদীবাড়ি ও সিন্দুর্ণা ইউনিয়নের সিন্দুর্ণার চরসহ ৬ ইউনিয়নের নিন্মাঞ্চলের সাত গ্রামের মানুষ।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডিবিশন (এক) এর তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আব্দুস শহীদ জানিয়েছেন, শুক্রবার রাতে তিস্তায় পানি বৃদ্ধি পেয়ে তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে নদীর পানি বিপদসীমার ১০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে বয়ে যায়। দু’একদিনের মধ্যে পানি কমবে। তবে বিনবিনার চরে অস্থায়ী বালুর বাঁধটি পরিকল্পিত না হওয়ায় পানির স্রোতে ভেঙেছে। আগামী শুস্ক মৌসুমে টেকসই বাঁধ দেয়ার পরিকল্পনার কথা জানন তিনি।

নিউজনাউ/এসএ/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: