বরগুনায় জোয়ারের পানি কমায় স্বস্তিতে উপকূলবাসী

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াস ও পূর্ণিমার জোয়ারের চাপে গেল দুই দিন একের পর এক বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে দুই শতাধিক গ্রাম। তবে ভারতে ইয়াস আঘাত হানার পর কমতে শুরু করেছে জোয়ারের উচ্চতা। বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও বুধবার সকালের জোয়ারের থেকে রাতের জোয়ারে কমেছে পানির উচ্চতা। এতে স্বস্তি ফেরা শুরু করেছে বরগুনার নদী ও সমুদ্রে তীরবর্তী বাসিন্দাসহ দুর্গত মানুষের মাঝে।

বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সকালে বরগুনার নদ-নদীতে জোয়ারের উচ্চতা ছিল ৩.৬৮ মিটার এবং রাতের জোয়ারের উচ্চতা ছিল ৩.৪৮ মিটার। যা দিনের জোয়ারের থেকে ২০ সেন্টিমিটার কম।

বরগুনা সদর উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নে গুলবুনিয়া এলাকার বাসিন্দারা বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের পরবর্তী সময় জোয়ারের উচ্চতা একবার কমা শুরু করলে আর বাড়ে না। এরপর পানির উচ্চতা কমতে কমতে একেবারে স্বাভাবিক পর্যায়ে চলে আসে। তাই ঘূর্ণিঝড় আর পূর্ণিমার জন্য সৃষ্ট জোয়ারের উচ্চতা আর বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা নেই বলেও জানায় তারা।

বরগুনার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী কায়ছার আলম বলেন, বুধবার দিনের জোয়ারের চাপে বেড়িবাঁধ ভেঙে ও উপচে জেলার বিভিন্ন স্থানে গ্রাম প্লাবিত হওয়ার খবর পেয়েছি। পরে ভাটার সময় ভাঙা বেড়িবাঁধ সংস্কার করা হয়েছে। কিন্তু রাতের জোয়ারের পর কোথাও বেড়িবাঁধ ভেঙে বা উপচে লোকালয় প্লাবিত হওয়ার কোনো খবর পাইনি।

নিউজনাউ/এফএস/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: