করোনায় মারা গেলেন মুক্তিযোদ্ধা আ’লীগ নেতা এম এ আহাদ

চট্টগ্রাম ব্যুরো: করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতা এম এ আহাদ। তিনি চট্টগ্রামের বর্ষীয়ান নেতা মরহুম জহুর আহমেদ চৌধুরীর মেয়ে শিরিনের জামাতা।

সোমবার মধ্যরাতে চট্টগ্রামের এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান এম এ আহাদ। সোমবার সকালে দামপাড়ায় তার বাড়ির প্রাঙ্গনে জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

তাঁর মৃত্যুর বিষয়টি নিউজনাউকে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর পুত্র ইশতিয়াক আহমেদ চৌধুরী সাদিত। মৃত এম এ আহাদ সম্পর্কে তার ফুফা হন।

আহাদের মৃত্যুর নিয়ে ফেসবুকে একটি শোকগাথা লিখেছেন মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। এতে এম এ আহাদের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের বিভিন্ন দিক উঠে আসে। বঙ্গবন্ধু নিজে উপস্থিত থেকে মরহুম জহুর আহমেদ চৌধুরীর মেয়ে শিরিনের সাথে এম এ আহাদের বিয়ে দেন। এরপর এই পরিবারের দায়িত্ব নেন
বঙ্গবন্ধু। তাঁর অনুপস্থিতিতে কন্যা শেখ হাসিনাও বিভিন্ন সময় এই পরিবারের পাশে ছিলেন বলে মাহতাব উদ্দিনের সেই লেখায় উঠে আসে।

Open Photo

তিনি আরও লেখেন, আহাদ ভাইয়ের কর্মীরা আজ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বড় বড় নেতা, কেউ এম,পি কেউবা মন্ত্রী। প্রাক্তন কানাডা আওয়ামী লীগ নেতা এবং বাংলাদেশ জাতীয় শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠা সদস্য ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ আহাদ ভাই। এম এ আহাদ ভাই মন্ট্রিয়াল এবং অন্টারিও শহরে বাঙালি কমিউনিটির এক কিংবদন্তীর নাম। আওয়ামী লীগ পরিবারের প্রিয় মানুষ।

তিনি আরো লেখেন জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ মন্ত্রী পরিষদ মন্ট্রিয়ালে ভ্রমণ বা রাষ্ট্রীয় সফরে আসিলে উনার আতিথিয়তা গ্রহণ করতেন। নেত্রী শেখ হাসিনা আহাদ ভাইকে এবং শিরিনকে নিজের পরিবারের মত ভালবাসতেন। সেই সময় হাতেগনা মুষ্টিমেয় কয়েক জন লোক ছাড়া মন্ট্রিয়ালে যারা আওয়ামী লীগ নেতা সেজেছেন বা হয়েছেন তাদের ঢাকার জাতীয় নেতাদের সাথে পরিচয় এবং একসাথে বসার সুযোগ করে দিয়েছিলেন-আহাদ ভাই।

নিউজনাউ/আরবি/২০২১

 

 

 

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: