তুমুল হট্টগোলে পণ্ড হলো সুপ্রিম কোর্ট বারের সভা

নিউজনাউ ডেস্ক: সভাপতিত্ব নিয়ে কোন্দল সৃষ্টি হওয়ায় সুপ্রিম কোর্ট বারের বিশেষ সাধারণ সভা পণ্ড হয়ে গেছে। আওয়ামী ও বিএনপি পন্থি আইনজীবীদের আধিপত্যকে কেন্দ্র করে সমিতির নতুন সভাপতির নাম ঘোষণা করা হলে দুপক্ষের মধ্যে কোন্দল সৃষ্টি হয়। নাম ঘোষণা হলেও শেষে অমীমাংসিত অবস্থায় সভা পণ্ড হয়ে যায়।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ‍হিসেবে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিনের নাম ঘোষণা করেছে কার্যনির্বাহী কমিটির আওয়ামীপন্থী অংশ। তারা দাবি করেছেন, সমিতির বিশেষ সাধারণ সভায় এ এম আমিন উদ্দিন কণ্ঠ ভোটে সভাপতি হয়েছেন।

মঙ্গলবার (৪ মে) সুপ্রিম কোর্ট বারের প্যাডে এক বিজ্ঞপ্তিতে সমিতির সহসভাপতি মুহাম্মদ শফিক উল্ল্যা বলেন, আমার সভাপতিত্বে মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সমিতির সভাপতি পদে এ এম আমিন উদ্দিনের নাম প্রস্তাব করলে উপস্থিত সদস্যরা করতালি ও কণ্ঠভোটে তার প্রস্তাবকে সমর্থন করেন।

তিনি আরও বলেন, ফলে এ এম আমিন উদ্দিনকে ২০২১-২২ মেয়াদের অবশিষ্ট সময়ের জন্য সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হলো। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির গঠনতন্ত্রের ১৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী এ এম আমিন উদ্দিন সভাপতি পদে ২০২১-২০২২ মেয়াদের অবশিষ্ট সময়ের জন্য দায়িত্ব পালন করবেন।

এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে আওয়ামীপন্থী প্যানেল নির্বাচিত সমিতির সহসভাপতি মুহাম্মদ শফিক উল্ল্যাসহ সাতজন কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য একমত পোষণ করে স্বাক্ষর করেছেন। অপরদিকে বিএনপিপন্থী প্যানেল থেকে নির্বাচিত সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজলসহ কার্যনির্বাহী পরিষদের ছয়জন সদস্য এতে স্বাক্ষর করেননি।

তিনি বলেন, বারের সংবিধান অনুযায়ী আমি এ সভা পরিচালনা করব। তখন এক পক্ষ বিরোধিতা শুরু করলে আওয়ামী পন্থি আইনজীবীদের সহসভাপতি মুহাম্মদ শফিক উল্ল্যা ডায়েসে দাঁড়িয়ে ঘোষণা দেন তিনি সভার সভাপতিত্ব করবেন।

সমিতির প্যাডে ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজলের পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আহুত বিশেষ সাধারণ সভা কোনো আলোচনা ও সিদ্ধান্ত ছাড়াই পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত মুলতবি ঘোষণা করা হয়েছে।

এ সময় শফিক উল্ল্যা বলেন, আমি আজকের সভার সভাপতি। এই সভা থেকে ঘোষণা করছি, আজ থেকে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন।

তখন আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা তাকে সমর্থন দেন। বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা এর বিরোধিতা করতে থাকেন। তারা চিৎকার করে বলতে থাকেন কণ্ঠ ভোট নয়, নির্বাচন চাই। এক পর্যায়ে মিলনায়তনের বৈদ্যুতিক সংযোগ ও মাইকের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। মঞ্চের ওপর ধাক্কাধাক্কির ঘটনাও ঘটে। শেষে তুমুল হট্টগোলের কারণে বিশেষ সাধারণ সভা পণ্ড হয়ে যায়।

নিউজনাউ/এসএ/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
মন্তব্য
Loading...
%d bloggers like this: