ভারতফেরত যাত্রীদের কোয়ারেন্টিন ১৬ হোটেলে

নিউজনাউ ডেস্ক : ভারতফেরত যাত্রীদের কোয়ারেন্টিনের জন্য জায়গা নেই বেনাপোল স্থলবন্দর এলাকার হোটেল-মোটেলে। এ কারণে যশোর শহরের ১৬টি হোটেলে তাদের রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। হোটেল মালিকরাও রাজি হয়েছেন। তারা জানান, নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অর্ধেক খরচে ভারতফেরত যাত্রীদের কোয়ারেন্টিনে রাখবেন।
সূত্র জানিয়েছে, বেনাপোল হয়ে গত ৭ দিনে দুই হাজারের বেশি মানুষ দেশে ফিরেছেন। এরইমধ্যে বেনাপোলের সব হোটেল ও পর্যটন মোটেল ভরে গেছে। সেখানে নতুনদের স্থান সংকুলান না হওয়ার কারণে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান।
গত শনিবার বিকালে যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জরুরি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় হোটেল মালিক ও তাদের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। কেবল যশোর নয়, স্থান সংকুলান না হলে পাশের ৪ জেলার হোটেলগুলোতে ভারতফেরত পাসপোর্ট যাত্রীদের কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে। জেলাগুলো হলো- সাতক্ষীরা, খুলনা, ঝিনাইদহ ও নড়াইল।
ঝিকরগাছা উপজেলার গাজীর দরগাহ এতিমখানা ও মাদ্রাসা ভবনও পূর্ণ। যে কারণে এখন যশোর শহরের হোটেলগুলো রিকুইজিশন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হলো। হোটেলের মালিকরা ভারতফেরত বাংলাদেশি নাগরিকদের স্বল্প খরচে থাকার ব্যবস্থা করতে সম্মত হয়েছেন। হোটেলগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সবধরনের উদ্যোগ নেয়া হবে।’ জেলা প্রশাসনের সূত্র জানায়, যশোর শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের ডরমেটরি, পাঁচ তারকা হোটেল জাবির ইন্টারন্যাশনাল, হোটেল হাসান ইন্টারন্যাশনাল, হোটেল সিটি প্লাজা, হোটেল ম্যাগপাই, হোটেল আর এস, হোটেল মণিহার, হোটেল ম্যাক্স, হোটেল সোনালী, সিটি হোটেল, হোটেল শাহরিয়ার, হোটেল বলাকা, হোটেল নয়ন, হোটেল নিউ ওয়ে, হোটেল প্রিন্স, হোটেল সিটি এবং যশোর হোটেলে ভারতফেরত যাত্রীদের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ সালাউদ্দিন শিকদার বলেন, ‘যেসব স্থানে ভারতফেরতদের রাখা হচ্ছে সেখানে নিরাপত্তার জন্য পুলিশ ও আনসার মোতায়েন থাকবে। ১৪ দিন অবস্থানের পর কোভিড পরীক্ষা করা হবে। পরীক্ষার ফলে নেগেটিভ সনদ পেলে তাদের বাড়িতে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হবে। ফেরত দেয়া হবে তাদের স্ব স্ব পাসপোর্ট।’

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
মন্তব্য
Loading...
%d bloggers like this: