কৃষকের মেয়ে

সুমিতা বিশ্বাস

আমি কৃষকের মেয়ে কৃষক আমার প্রান,
কৃষকের মেয়ে পরিচয় দিতে হয়না অপমান ।
শৈশব গেছে কাদামাটি মেখে গরু ছাগলের পালে,
মাছ ধরেছি স্নান করেছি শ্যাওলা পঁচা বিলে।
কৃষক হলো মাটির মানুষ অতি সাদাসিধে,
কষ্ট করে ফসল ফলায় পেটে নিয়ে ক্ষিধে।
কৃষক বলে তাদের কভু করো নাকো অবহেলা ,
তাদের জন্য পেটপুরে ভাত খাচ্ছো পয়সাওয়ালা।
রোদ বৃষ্টি মাথায় নিয়ে কৃষক করে চাষ,
তাদের ঘামে মাটি ভেজে অভাব বারো মাস।
লাঙ্গল জোয়াল নিয়ে বাবা ভোরে ছুটে যেতো,
একটু বেলা হলেই মা খাবার নিয়ে পৌছাতো।
খাবার ছিলো পোড়া মরিচ বাসি পান্থা ভাত,
খুশী মনে বাবা খেয়ে নিতো মায়ের মুখে হাত।
হয়তো বাবা বলতো মাকে মলিন কেন মুখ ?
লেখাপড়া শিখছে ওরা থাকবেনা আর দুঃখ।
সুখ পেলো নাকি দুঃখ পেলো বাবা চলে গেলো,
অবুঝ শিশু ছিলাম আমি মা বিধবা হলো।
বাবা যখন চলে গেলো অভাব ছিলো না,
সুখের মুখ বাবার কপালে দেখা হলো না।
বাবা আমার কৃষক ছিলো গর্ব করে বলি ,
ধন্য আমি কৃষকের মেয়ে সত্য নাহি ভুলি।
আবার যদি জন্ম নিয়ে ফিরে আমি আসি,
জন্ম নেবো কৃষকের ঘরে কৃষক ভালোবাসি।

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ