অমানিশায়: সজল দাস

যদি আর কখনো না ফিরি

বুঝবে, পাড়ি দিয়েছি ভবতরী

পৌঁছে গেছি মৃত্যুপুরী।

দিন বদলের দিন জানি না কত দূর

দীর্ঘশ্বাসে পুড়ে সকাল দুপুর!

অসহায় বেঁচে থাকা

অনুভবে নিঃস্ব

মৃত্যুপুরী আজ সারা মহাবিশ্ব!

চোখে তাই শতাব্দীর কালো অন্ধকার

জীবন-মৃত্যুর ব্যবধান বেশি দূরে নেই আর।

দুশ্চিন্তার বিষাদ ঘোচে যদি মুক্তি পাই

দিশেহারা মন কাঁদে নির্জন স্বস্তি কুড়াই।

উড়িয়ে দিয়ে দুশ্চিন্তার ওই ইচ্ছেঘুড়ি

অসহায় চেয়ে থাকা কিংবা বাঁচি মরি

অনুভবে নিঃস্ব

শ্মশান মহাবিশ্ব

হায়রে জীবন যন্ত্রণা

মন তো মানে না!

আমি সব দেবতারে ছেড়ে

আমার প্রাণের কাছে চলে আসি

চোখে মোর শতাব্দীর নীল অন্ধকার

জীবন-মৃত্যুর ব্যবধান দূরে নেই আর।

সমস্ত প্রাণীকুল আজ চুপ নিঃশ্চুপ

পৃথিবী পেয়েছে ফিরে তার আদি রূপ।

জীবনের মানে খুঁজে দিশেহারা ভয়

ক্ষুধা মৃত্যু পিছু টানে সে-জীবন নয়।

যে তুমি মিশে আছো জীবনের ত্রিসীমায়

বুঝি এভাবেই ভালবেসে চলে যেতে হয়?

একা একা পথ চলি

জীবনের সব অলিগলি

বন্ধ আজি যত পারাপার

তিমির রজনী কাটে নির্বিকার।

 

কত বসন্ত আচ্ছন্ন হয়ে মরে যায়

পোড়া বিকেলের সূর্য ডুবার বেলায়।

গ্রীষ্ম নেই বর্ষা নেই

বিলুপ্ত জীবন মরা নদীর রেখার মত ক্ষয়িষ্ণু মাটির তলায়!

সমস্ত প্রাণী মরণ থেকে পালিয়ে বেড়ায়

সহিষ্ণু আলোয় বিভোর বাঁচার আশায়

চাঁদ ভাসে সূর্য ডুবে অনন্তের তৃষায়

শুধু এ জীবন ঢেকে যায় ঘোর কুয়াশায়

তমসা সহসা তব অমানিশায়।।

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...