alo
ঢাকা, শনিবার, ডিসেম্বর ১০, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইরানে বন্দুক হামলায় নিহত ৯

প্রকাশিত: ১৭ নভেম্বর, ২০২২, ০৮:০৪ পিএম

ইরানে বন্দুক হামলায় নিহত ৯
alo

নিউজনাউ ডেস্ক: ইরানে বাধ্যতামূলক হিজাব আইন বাতিল ও নারীর পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে বিক্ষোভরত জনতার ওপর অজ্ঞাতনামা বন্দুকধারীদের পৃথক দুটি হামলায় অন্তত নয়জন নিহত হয়েছেন। দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় খুজেস্তান প্রদেশ ও ইসফাহান শহরে বুধবার পৃথক এই দুই হামলার ঘটনা ঘটে।এ খবর দিয়েছে আরব নিউজ।


খবরে জানানো হয়, প্রথম ঘটনাটি ঘটে ইরানের খুজেস্তান প্রদেশে। একটি বাজারের সামনে গুলির ঘটনায় অন্তত সাত জন নিহত এবং ১০ জন আহত হন। এ হামলার সঙ্গে যুক্ত থাকা সন্দেহে অন্তত তিন জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার একজন ঊর্ধ্বতন বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা। এছাড়া আরও কয়েকজনকে খোঁজা হচ্ছে। এই হামলার চার ঘণ্টা পর ইরানের তৃতীয় বৃহত্তম শহর ইস্ফাহানে আরও একটি বন্দুক হামলা হয়। একটি মোটরসাইকেলে থাকা দুই হামলাকারী বাসিজ আধাসামরিক বাহিনীর সদস্যদের উপর স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের গুলি চালায়।এতে দুইজন নিহত এবং দুইজন আহত হয়।সেপ্টেম্বর মাস থেকে উত্তাল ইরান। দেশটির প্রধান শহরগুলোতে সরকারবিরোধী আন্দোলন চলছে। কুর্দি তরুণী মাহশা আমিনির মৃত্যুকে ঘিরে শুরু হওয়া সেই বিক্ষোভ থামার কোনো লক্ষণ নেই। এই অস্থিতিশীল অবস্থার মধ্যে একের পর এক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটছে ইরানে। গত মাসে একটি দরগাহে গুলির ঘটনায় ১৩ জন নিহত হন। এরপর আবার এই গুলির ঘটনা ঘটলো।

এর আগে ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম ইরনা জানিয়েছিল, একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী খুজেস্তানের কেন্দ্রীয় বাজারের সামনে বিক্ষোভকারীদের সমাবেশের সুযোগ নিয়ে লোকজন এবং নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের উপর গুলি চালিয়েছে। দুটি মোটরসাইকেলে চড়ে আততায়ীরা বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ইজেহ শহরের একটি কেন্দ্রীয় বাজারে গুলি চালায়। ওই ঘটনায় তখন পাঁচজন নিহত এবং ১০ জন আহত হওয়ার খবর দিয়েছিল ইরনা। তবে পরে নিহতের সংখ্যা সাতে গিয়ে দাঁড়ায়। 

এ হামলা কোনো জঙ্গি সংগঠন চালিয়েছে কিনা তা এখনও জানা যায়নি। ইরানের সরকার এ হামলাকে ‘সন্ত্রাসী হামলা’ বলে আখ্যায়িত করেছে। গত মাসে দরগাহে হওয়া হামলার সঙ্গে এ হামলার মিল রয়েছে। ওই হামলার দায় স্বীকার করেছিল ইসলামিক স্টেট। ধারণা করা হচ্ছে, এবারের হামলার সঙ্গেও জঙ্গি সংগঠনটির সম্পর্ক রয়েছে।
 

এ ঘটনাকে ‘সন্ত্রাসী হামলা’ বলে অভিহিত করে দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যম। ইরানের আধাসরকারি সংবাদ সংস্থা আইএসএনএ বলেছে, একটি গাড়িতে করে দুই বন্দুকধারী বাজারে পৌঁছে লোকজনকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়েছে। হামলায় জড়িত সন্দেহে ইতোমধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ছাড়া অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

এদিকে বিক্ষোভকারীদের ওপর ওই হামলার চার ঘণ্টা পর ইরানের তৃতীয় বৃহত্তম শহর ইসফাহানে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র থেকে বাসিজ মিলিশিয়া গোষ্ঠীর সদস্যদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালানো হয়েছে। এতে বাসিজ মিলিশিয়া গোষ্ঠীর দুই সদস্য নিহত ও আরও দুজন আহত হয়েছেন।

এর আগে, গত মাসে ইরানের শিরাজ শহরের এক মাজারে সন্ত্রাসী হামলায় অন্তত ১৫ জনের প্রাণহানি ঘটে। এ ছাড়া ওই হামলায় আহত হন আরও কয়েকডজন মানুষ। পরে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) শিরাজের মাজারে হামলার দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয়।


নিউজনাউ/এসএইচ/২০২২ 
 

X