মার্কিন নির্বাচন: ফল ঘোষণায় বিলম্বের কারণ

নিউজনাউ ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে জল্পনা কল্পনা চলেছে অনেক। কে বসতে চলেছেন মার্কিন মসনদে, তা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব ছিল। গত ৩ নভেম্বর ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে, কিন্তু এখনো ফলাফল নিয়ে ধোঁয়াশা কাটছেই না। জো বাইডেন এগিয়ে রয়েছেন অনেকটাই, কিন্তু তার জয়ের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এখনো আসেনি। ফলাফল জানতে বাকি ৫টি অঙ্গরাজ্যের। এরই মধ্যে জর্জিয়াতে পুণরায় ভোট গণনা হওয়ার কথা রয়েছে। সবমিলিয়ে কেন ভোট গণনা আর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা কেন আসছে না- তা নিয়ে প্রশ্ন বাড়ছেই।

ধারণা করা হচ্ছে, ফলাফল ঘোষণায় দেরি হওয়ার কারণ অ্যাবসেন্টি (অনুপস্থিতি) ও প্রভিশনাল (শর্তযুক্ত) ব্যালট। অ্যাবসেন্টি ব্যালট বা ডাকভোট মূলত সাধারণত যেসব ভোটার নির্বাচনের দিন স্বশরীরে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে নারাজ বা অক্ষম, তাদের কাছে আগাম ভোটের ব্যালট পাঠানো হয়। পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে তারা সেগুলো আবার ডাকযোগে নির্বাচনী কর্মকর্তাদের কাছে ফেরত পাঠান।

প্রভিশনাল ব্যালট হচ্ছে কোনো ভোটার যদি ভোটকেন্দ্রে আসার সময় নিজেদের পরিচয়পত্র রেখে আসেন বা ভোট দিতে প্রয়োজনীয় অন্য কোনো তথ্য দিতে না পারেন, তখন তাকে এই আপৎকালীন ব্যালট দেওয়া হয়। যুক্তরাষ্ট্রের আইন অনুসারে, প্রাপ্তবয়স্ক যে কেউ ভোটকেন্দ্রে হাজির হয়ে আবশ্যক তথ্য দিতে না পারলেও তাকে ব্যালট দিতে হবে। ভোটার সেই ব্যালটের মাধ্যমে নিজের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন, যা নির্বাচনী কর্মকর্তারা আলাদা করে রাখেন। পরে ওই ব্যক্তির ভোট দেওয়ার যোগ্যতা রয়েছে কিনা, তা যাচাই করা হয়। এ পরীক্ষায় পাস করলে তবেই তার ভোট গণনায় নেয়া হয়।

টানা তিনদিন ধরে সবার চোখ ছিল নেভাদার দিকে। নেভাদার নির্বাচনী কর্মকর্তারা জানান, আগামী ১০ নভেম্বর পর্যন্ত ডাকভোট গণনা চলবে সেখানে। নেভাদায় কতগুলো ব্যালট গণনা বাকি তা নির্ধারণ কিছুটা কঠিন। এবারের নির্বাচনে বেশি ডাকভোট ব্যবহৃত রাজ্যগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম। এখানের ছয়টি ইলেক্টোরাল ভোট পেলেই বাইডেনের আসন পরিপূর্ণ হবে। সেখানের ফলাফল জানতে আরও তিনদিন অপেক্ষা করতে হবে, বিলম্বের এটাও একটা কারণ।

এদিকে বড় রাজ্য পেলসিলভেনিয়াতেও আটকে রয়েছে ফলাফল। সেখানে হুট করে ফলাফল ঘুরে গেছে বাইডেনের দিকে। শুক্রবার বিকেলের মধ্যে তাদের বেশিরভাগ ডাকভোট গণনা শেষ হয়েছে এবং তারা প্রভিশনাল ব্যালট গোনার প্রক্রিয়া শুরু করছেন। নির্বাচনী বোর্ডের তথ্যমতে, স্থানীয় সময় শুক্রবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত রাজ্যটিতে আনুমানিক ১ লাখ ১৩ হাজার অ্যাবসেন্টি ব্যালট গণনা বাকি ছিল। সেখানের জনবহুল শহর ফিলাডেলফিয়ার নগর কমিশনার লিসা ডিলে জানিয়েছেন, সেখানে প্রায় ৪০ হাজার ভোট গণনা বাকি। এগুলোর চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিতে আরও কয়েকদিন লেগে যেতে পারে। এছাড়া অ্যালেঘেনি কাউন্টিতে ৩৬ হাজার ভোট গণনা বাকি। সেখানের ২৯ হাজার ব্যালট আদালতের নিষেধাজ্ঞার কারণে শুক্রবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত গণনা স্থগিত ছিল। এ কাউন্টিতে প্রভিশনাল ব্যালট রয়েছে আনুমানিক ১০ থেকে ১৫ হাজার। সেগুলো যাচাই শেষে গণনা করতেও সময় লাগবে। একারণেই দেরি হচ্ছে।

জর্জিয়াতে আবার ভোট গণনার কথা রয়েছে। সেখানে অন্তত ১৩ হাজার প্রভিশনাল ব্যালট যাচাই বাকি রয়েছে। এর মধ্যে শুধু ফুল্টন কাউন্টিতেই রয়েছে ৪ হাজার ৮০০এর বেশি ভোট। রাজ্যটিতে সবশেষ ৩ হাজার ৬০০ প্রভিশনাল ভোট গ্রহণ করা হয়েছে, বাতিল হয়েছে ১ হাজার ২০০টি। আবার ভোট গণনা না হলেও ঘোষণা আসতে আগামীকালও পার হতে পারে।

আবার নর্থ ক্যারোলিনায় স্থানীয় সময় আগামী ১২ নভেম্বর বিকেল ৫টার মধ্যে ১ লাখ ১৬ হাজার অ্যাবসেন্টি ভোটের অনুরোধ ফেরত আসে কিনা তা দেখার জন্য অপেক্ষা করছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তাই এখানেও দেরি হচ্ছে ভোটের ফল পেতে।

নিউজনাউ/এসএইচ/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...