করোনা সংকট: পরিত্রাণ কতদূর?

সায়েদুর রহমান :

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশে মৃতের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। মৃত্যুর এ মিছিল যত দীর্ঘ হয় তত মনের মাঝে প্রশ্ন জাগে যারা বলেছিল ধর্মীয় প্রার্থনালয় খুলে দিলে স্রষ্টা খুশি হবেন তারা কি বুঝতে পেরেছেন, কি এক অসীম অন্ধত্ব নিয়ে তারা তাদের ধর্ম বিশ্বাস টিকিয়ে রেখেছেন। বিজ্ঞান ও সভ্যতার বাইরে কি এক আদিম ও প্রস্তর যুগে তাদের বসবাস।

তারা এখনো গাল-গপ্পে ভরা ধর্মীয় মতবাদে বিশ্বাস করে, যার অধিকাংশ অতিরঞ্জিত ও বাস্তবতা বিবর্জিত। মানুষ যদি অন্ধ আনুগত্য পরিত্যাগ করে খোলামনে তাদের ধর্মীয় বিভিন্ন আচার-আচরণ সম্পর্কে জানার চেষ্টা করে, ধর্মীয় পুস্তকাদি অধ্যয়ন করে, যে সকল প্রশ্ন মনের মধ্যে জাগ্রত হয় তার উত্তর খোঁজার চেষ্টা করে তবে খুব সহজেই আলোকিত একটি পথের দিশা খুঁজে নিতে পারে।

যে আলোকিত পথ বলে মানুষকে ঘৃণা করো না, মানুষকে হত্যা করো না, মানুষকে ভালোবাসো। যে আলোকিত পথ সময়ের সাথে সাথে নিজেকে বদলে নেয়, জ্ঞানের আলোয় আলোকিত হয়। যে আলোকিত পথ ধর্ম, বর্ণ ও জাতি নির্বিশেষে সকলকে ভালবাসার কথা বলে। যে আলোকিত পথ আমাদের ঔদার্য চিত্তে আহবান করে, “মানুষের চেয়ে বড় কেহ নহে, নহে কেহ মহীয়ান।”

যদি কেউ প্রশ্ন করেন, “ভাই, কি সে আলোকিত পথ? আমি উত্তর দেব, “মানবিকতা, পরমতসহিষ্ণুতা ও পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ।” মানুষকে ভালবাসুন, তাদের বিপদে পাশে দাঁড়ান। বিজ্ঞান মনস্ক হোন, কুসংস্কার পরিত্যাগ করুন।

কোন অলৌকিক ক্ষমতা আপনাকে রক্ষা করবে না। কোন ধর্মীয় প্রার্থনালয় আপনার সহায় হবে না। করোনা ভাইরাসের এ মহাসংকট থেকে বাঁচতে হলে সচেতন হোন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন, মাস্ক পরিধান করুন, গনজমায়েত পরিহার করুন, দায়িত্বশীল আচরণ করুন, মিতব্যয়ী হোন। যদি তা করতে পারি তবে ভয়াবহ এ মহামারী হতে বাংলাদেশের মানুষ রক্ষা পাবে। তা নাহলে মৃত্যুর এ মিছিল দীর্ঘতর হতেই থাকবে।

লেখক: সায়েদুর রহমান, অস্ট্রিয়া প্রবাসী

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...