ইসলামি সংগীতে রক ও পপ মিউজিক

নিউজনাউ ডেস্ক: মিশরের এক ইসলামি সংগীত শিল্পী বিশ্বের দরবারে ইসলামি সংগীতের কদর বাড়াতে এতে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য সংগীতের সংমিশ্রণ ঘটাচ্ছেন৷

মিশরের মোহাম্মদ আল-তোহামি ইসলামি সংগীত ইনশাদ পরিবেশনে দারুণ পারদর্শী৷ ১৪শ বছরের পুরোনো ইসলামি সংগীতের একটি রূপ এটি, যেখানে আল্লাহ ও মহানবীর গুণগান করা হয় কথা ও সুরের মাধ্যমে৷

আল তোহামি ইনশাদ গাইতে যতটা পছন্দ করেন, গেম অফ থর্নসের থিম সং গাইতেও ততটা ভালোবাসেন ৷

৪১ বছর বয়সী তোহামি সুফি ইসলাম দ্বারা অনুপ্রাণিত৷ এ কারণে প্রাচীন ইসলামি পদ্য এবং কাব্য সুরের সাথে পরিবেশন করে তিনি আত্মতৃপ্তি পান৷

তবে ইনশাদকে তোহামি এমনভাবে উপস্থাপন করছেন, যা বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হচ্ছে ৷ ইসলামি সংগীতের এই ধারা নিয়ে তিনি নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছেন৷

যেখানে ইসলামি গানে যেকোনো বাদ্যযন্ত্র বাজানো নিষেধ, সেখানে তিনি ওয়েস্টার্ন ঘরানার রক মিউজিক এবং অর্কেস্ট্রার সাথে এসব গান পরিবেশন করেন৷

সংবাদ সংস্থা এএফপিকে তোহামি জানান, তাঁর নতুন প্রকল্প শাস্ত্রীয় আরবি সংগীতের সাথে জনপ্রিয় সংগীতের মিক্সিং৷

অর্থাৎ রক,পপ সবধরনের সংগীতের সাথে এসব মিউজিকের মিশ্রণ ঘটাতে চান তিনি ৷ কেবল পাশ্চাত্য নয়, প্রাচ্যের সংগীতের সঙ্গেও ঐতিহ্যবাহী ধর্মীয় সংগীতের সংমিশ্রণ করতে চান এই শিল্পী ৷ এর মাধ্যমে পশ্চিমা বিশ্বের তরুণ প্রজন্মের কাছে শাস্ত্রীয় আরবি সংগীতের কদর বাড়বে বলে মনে করেন।

তিনি বলেন, সংগীতের কথার চেয়ে সুর মানুষকে বেশি আকর্ষণ করে, আর ইনশাদের সুর বিদেশিদের মনকে ছুঁয়ে যাবে এতে কোনো সন্দেহ নেই ৷

তোহামির বাবাও ইসলামি সংগীত শিল্পী ৷ ইয়াসিন আল-তোহামি মিশরের জনপ্রিয় ধর্মীয় শিল্পী ৷ ২০১৪ সাল থেকে তোহামি কায়রোতে একটি গানের স্কুল চালাচ্ছেন, উদ্দেশ্য নতুন প্রজন্মের কাছে ধর্মীয় সংগীত ও সাহিত্যকে তুলে ধরা ৷

এখন পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের নয়টি দল স্নাতক হয়েছে এই স্কুল থেকে ৷ তোহামি জানান, তাঁর স্কুলে বয়স, ধর্ম ও জাতীয়তার কোনো বাধ্যবাধকতা নেই, যে কেউ এখানে এসে ইসলামি সংগীতে তালিম নিতে পারে ৷

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংগীত উৎসবে অংশ নিয়ে থাকেন তোহামি ৷ ২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বের হওয়া অ্যালবাম অরিজিন -এর তিনটি গানের সাথে সঙ্গত করেন তিনি ৷ এই অ্যালবামটি গ্লোবাল মিউজিক অ্যাওয়ার্ড জিতে নেয় ৷

ফরাসি টিভিতে শিশুদের প্রতিভা বিকাশের অনুষ্ঠান ‘দ্য ভয়েস কিডস’-এ পারফর্ম করেছে তাঁর স্কুলের শিক্ষার্থীরা৷

গ্র্যামিজয়ী মিশরীয় সংগীত শিল্পী ফাতি সালামার সঙ্গে সম্প্রতি একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছেন তিনি ‘সুফিজম ভার্সাস মর্ডানিটি ৷ ইটালি ও নরওয়েতে তাদের যৌথ পরিবেশনার কথা থাকলেও করোনার কারণে তা বিলম্বিত হচ্ছে ৷

তোহামি নিজেকে সুফি দর্শনপ্রেমী হিসেবে বর্ণনা করতে ভালোবাসেন ৷ কারণ, ইসলামের এই ধারায় আল্লাহর প্রতি ভালোবাসা জানানো হয় সংগীত, নৃত্য এবং কবিতার মাধ্যমে ৷ তার মতে, সুফি ইসলাম দর্শনকে কেউ যদি মনেপ্রাণে গ্রহণ করে, তবে সন্ত্রাসবাদের চিন্তা কখনো তার মনে স্থান পাবে না ৷

নিউজনাউ/এফএফ/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
Loading...