৯৯৯ এর সহায়তায় আড়াই মাস পর ঠিকানা পেলো ঝর্না

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধার রামচন্দ্রপুর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা সরোয়ার এর সহযোগিতা এবং জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ ফোন করে দীর্ঘ আড়াই মাস পর মানসিক ভারসাম্যহীন মেয়েকে ফিরে পেলো তার পরিবার।

জানা যায় গত ৯ মার্চ ২০২০ তারিখে নরসিংদী জেলার মনোহরদি থানার পাটুরি গ্রামের মুখেন চন্দ্র বর্মনের মেয়ে বাড়ি থেকে হারিয়ে যায় এরপর সে গাইবান্ধা সদর উপজেলার রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের বালুয়া বাজারে আসে। স্থানীয় একজন দর্জি ব্যাবসায়ী উজ্জল চক্রবর্তি তাকে তার বাড়িতে আশ্রয় দেয়।

কিন্তু এসময় তার শারীরিক অবস্থা খারাপ ছিলো তাই তখন তাকে তার ঠিকানা জনতে চাইলে ঝর্না কোন উত্তর দিতে পারেনি। হঠাৎ এক দিন সে তার ঠিকানা বলতে পারে ঠিকানা শোনার পর উজ্জল রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের উদ্যোক্তা সারোয়ার এর কাছে যায় সারোয়ার নরসিংদি জেলার সমমত ইউপি ডিজিটাল সেন্টারে মেয়েটির দেওয়া তথ্য পাঠালে তার পরিবারের সন্ধান পাওয়া যায়।

এরপর ঝর্নাকে আইনিভাবে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য ৯৯৯ এ ফোন করেন ঐ উদ্যোক্তা। পরে ৯৯৯ গাইবান্ধা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ এর সঙ্গে যোগাযোগ করে দিলে ওসি বিষটি সম্পর্কে অবগত হন এবং মনোহরদি থানার ওসির সাথে যোগাযোগ করেন। ঝর্নার পরিবারের সাথে কথা বলে পরে উজ্জল এবং উদ্যেক্তা সরোয়ার ঝর্নার পরিবারের কাছে ঝর্নাকে তুলে দেন। এসময় দির্ঘদিন পর মেয়কে দেখতে পেয়ে তার বাবা আবেগে আপ্লুত হয়ে ভেঙ্গে পরে।

নিউজনাউ/এসএ/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
Loading...