রংপুর করোনা হাসপাতালে সুস্থতার সংখ্যা ২০০ ছাড়ালো

রংপুর ব্যুরোঃ রংপুরের ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেশন হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে আরো দশজন বাড়ি ফিরলেন। শুক্র ও শনিবার (১০ ও ১১ জুলাই) এই দুইদিনে দশজনকে ছাড়পত্র দেয়া হয়।

ছাড়পত্র প্রাপ্তরা হলেন, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মাহমুদা আক্তার (৪২), রংপুরের ব্যবসায়ী মহসিন বালি (৩৮), রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সদস্য মানিক কুমার রায় (৩৮), রংপুর শহরের বাসিন্দা শেখ নিয়াজ আহমেদ (৬০), মিঠাপুকুরের শাহীন প্রধান (৫৫), বদরগঞ্জের মোজাম্মেল (৭৫), লালমনিরহাটের দোলন চন্দ্র (৫২), নীলফামারীর মানিক রায় (৪৭) এবং গাইবান্ধার সহিদুল ইসলাম (৪০) ও মিলন (৩২) ।

বিদায় নেয়ার সময় হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কসহ চিকিৎসকরা তাদেরকে ফুল ও চিঠি দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এ নিয়ে ২০৩ জন এই হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি ফিরলেন।

ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেশন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. এস.এম নূরুন নবীনি উজনাউকে জানান, নিয়াজ ও মানিক রায় গত ২৮ জুন, মহসিন ২৯ জুন, সহিদুল ৩০ জুন, মানিক কুমার ও ডা. মাহমুদা ৩ জুলাই, শাহীন ও মিলন ৪ জুলাই, দোলন চন্দ্র ৫ জুলাই এবং মোজাম্মেল ৮ জুলাই করোনা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এরমধ্যে মহসিন বালির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়।

তিনি আরও জানান, এই দশজনের শরীরে কোভিড-১৯ এর উপসর্গ না থাকায় এবং নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় তাদের ছাড়পত্র প্রদান করা হয়েছে।

হাসপাতাল চালু হবার পর থেকে এ পর্যন্ত ২৫৯ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ২০৩ জন এই হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন। হাসপাতালে ভর্তি হবার পর মারা গেছেন ১৪ জন। বর্তমানে হাসপাতালে ৩৯ জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

তিনি জানান, রংপুর ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেশন হাসপাতাল হতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে গেছে। এই হাসপাতালে সুস্থতার হার বাংলাদেশের সর্বোচ্চ। এজন্য তিনি হাসপাতালের ডাক্তার, নার্সসহ সকল স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।
নিউজনাউ/এফএফ/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...