বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালের একাংশ লকডাউন

বরিশাল ব্যুরো: বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থপেডিক বিভাগের চিকিৎসক-নার্সসহ ১১ জন করোনা আক্রান্ত হওয়ায় পুরো অর্থপেডিক বিভাগ লকডাউন করা হয়েছে। একই সাথে ওই বিভাগের দায়িত্বরত অন্য চিকিৎসক-নার্সদের আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে। করোনা পজিটিভ রোগীর তথ্য গোপন করে সেবা নিতে যাওয়ায় ওই বিপর্যয় হয়েছে বলে দাবি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের।

শনিবার (৬ জুন) বিকেল থেকে অর্থপেডিক বিভাগ লকডাউন করে স্বল্প পরিসরে মেডিসিন বিভাগের সঙ্গে অর্থপেডিক সেবা চালু থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থপেডিক বিভাগের সার্জন ডা. সুদীপ হালদার নিউজনাউকে বলেন, করোনা পজিটিভ দুই রোগী তথ্য গোপন করে অর্থপেডিক বিভাগে ভর্তি হন। তারা কয়েকদিন ওই বিভাগে চিকিৎসা নেন। বিষয়টি জানতে পেরে অর্থপেডিক বিভাগের সব ডাক্তার, নার্স ও রোগীদের নমুনা সংগ্রহ করে মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়। শনিবার (৬ জুন) রিপোর্টে ওই বিভাগের ডাক্তার ও নার্সসহ ১১ জনের করোনা পজিটিভ তথ্য পাওয়া যায়।

সে কারণে পুরো অর্থপেডিক বিভাগ লকডাউন করা হয়েছে। স্বল্প পরিসরে অর্থপেডিক বিভাগ চালু রাখতে মেডিসিন বিভাগের সঙ্গে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তথ্য গোপন করে ভর্তি হওয়া দুই রোগীকে করোনা ওয়ার্ডে প্রেরণ করার কথা জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন রাতে নিউজনাউকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, করোনা পজিটিভ দুই রোগী ৭ দিন ধরে অর্থপেডিক বিভাগে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। তথ্য গোপন করায় সেখান থেকে একজন চিকিৎসক, ৭ জন নার্স এবং ৩ জন রোগী পজিটিভ হয়েছে। তাই অর্থপেডিক বিভাগ ৭ দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জরুরি ক্ষেত্রে অর্থপেডিক বিভাগ মেডিসিন বিভাগের সঙ্গে যুক্ত থাকবে।

নিউজনাউ/এসএ/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...