গোপালগঞ্জে পুলিশের মারধরে কৃষকের মৃত্যুর অভিযোগ

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি:
গোপালগঞ্জে পুলিশের মারধরে নিখিল তালুকদার (৩২) নামের এক কৃষকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (৩ জুন) বিকাল সাড়ে ৪টায় ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নিখিল মারা যান।

নিহত নিখিল তালুকদার কোটালীপাড়া উপজেলার রামশীল ইউনিয়নের রামশীল গ্রামের নীলকান্ত তালুকদারে ছেলে। তিনি কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন।

নিখিলের স্ত্রী ইতি তালুকদার নিউজনাউকে বলেন, ‘আমাদের জমির ধানকাটা ও ধান গোলায় তোলা হয়েছে। কাজ নেই, তাই এখন আমার স্বামী অবসর সময় কাটাচ্ছিলেন। মঙ্গলবার (২ জুন) বিকেলে রামশীল বাজারের ব্রীজের পূর্ব পাশে আমার স্বামীসহ ৪ জন বসে তাস খেলছিলেন। এসময় কোটালীপাড়া থানার এ.এস.আই শামীম উদ্দিন ১ জন ভ্যানচালক ও সাথে ১ জন জন যুবককে নিয়ে সেখানে যান। গোপনে মুঠোফোনে তাস খেলার দৃশ্য ধারণ করেন। তারা বিষয়টি টের পেয়ে খেলা রেখে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এসময় অন্য ৩ জন পালিয়ে গেলেও নিখিলকে এএসআই শামীম উদ্দিন ধরে মারধর শুরু করেন। এক পর্যায়ে হাটু দিয়ে নিখিলের মেরুদণ্ডে আঘাত করেন শামীম। এতে নিখিলের মেরুদণ্ড ভেঙে যায়। তাকে প্রথমে বরিশাল শের-ই- বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে সে বুধবার বিকেলে মারা যায়।’

নিহত নিখিল তালুকদারের চাচাতো ভাই মিলন তালুকদার নিউজনাউকে বলেন, ‘আমার ভাই তাস খেলেছে। এজন্য পুলিশের এএসআই শামীম হাটু দিয়ে আঘাত করে তার মেরুদণ্ড ভেঙে দিয়েছিলো। সে যদি কোন অন্যায় করে তাহলে, আইন অনুযায়ী তার সাজা হবে। কিন্তু সমান্য তাস খেলার অপরাধে একজন এএসআই তাকে এভাবে আঘাত করেছে। তার আঘাতেই নিখিলের মৃত্যু হয়েছে। নিখিল পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তার উপর একটা সংসার চলে । এখন ওই পরিবারের কি হবে? প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমরা এর সঠিক বিচার চাই।’

এ ব্যাপারে রামশীল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খোকন বালা নিউজনাউকে বলেন, ‘নিখিল এলাকার সবার কাছে ভালো ছেলে হিসেবে পরিচিত ছিলো। এলাকার মানুষের কাছে জানতে পারি কোটালীপাড়া থানার এএসআই শামীম উদ্দিন হাটু দিয়ে তার পিঠের আঘাত করে। এতে নিখিলের মেরুদণ্ড তিন খণ্ড হয়ে যায়। যা পরে এক্সরের মাধ্যমে জানতে পেরেছে। তাকে বরিশাল মেডিকেলে রাখেনি, ঢাকায় নিলেই তার মৃত্যু হয়েছে। এটা অত্যন্ত দুঃখ জনক। একজন আইনের লোক হয়ে বেআইনি কাজ করেছে। তাও আবার মৃত্যূর ঘটনা ঘটেছে । তাহলে জনগন কোথায় গিয়ে দাড়াবে?’

এবিষয় এএসআই মো. শামিম উদ্দিন মুঠোফোনে নিউজনাউকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কিছুই বলবনা। আপনি ওসি স্যারের সাথে কথা বলেন। এ ব্যাপারে ওসি স্যার বক্তব্য দেবেন। কারণ বিষয়টি ওসি স্যার দেখছেন।’

কোটালীপাড়া থানার ওসি শেখ লুৎফর রহমান নিউজনাউকে বলেন, নিখিলকে পুলিশ মারপিট করেনি। সে দৌড়ে পালানোর সময় গাছের সাথে ধাক্কা লেগে পড়ে গিয়ে কোমরে ব্যাথা পেয়েছে। তারপর শুনেছি তার নাকি হাড় ভেঙ্গেছিলো। তবে কি গাছের সাথে ধাক্কা লেগেছে, তা তিনি জানাতে পারেননি।

গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার মুহাম্মাদ সাইদুর রহমান খান নিউজনাউকে বলেন, ‘কোটালীপাড়া রামশীলে কয়েকজন লোক জুয়া খেলছিলো পুলিশ দেখে পালানোর সময় পড়ে গিয়ে নিখিল আহত হয়। প্রথমে তাকে বরিশাল হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে সে ঢাকাতে মারা যায়। কি কারণে মারা গেছে সেটা ডাক্তার বলতে পারবে আমরা এটা বলতে পারি না। তবে আমাদের কাছে এমন কোন অভিযোগ আসেনি যে, তাকে পুলিশ মেরেছে।’

উল্লেখ্য, সহকারি উপপরিদর্শক মো. শামিম উদ্দিন এর আগে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী থানা ও কাশিয়ানী উপজেলার রামদিয়া পুলিশ ফাঁড়িতে কর্মরত ছিলেন, সেখানেও তার একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

কাশিয়ানী উপজেলার রাজপাট গ্রামের বাসিন্দা ও ইউপি সদস্য ইরান খন্দকার নিউজনাউকে বলেন, ‘একজন ভ্যানচালককে মাদক ক্রেতা সাজিয়ে আমাদের এলাকার নাজমুল নামের এক ব্যবসায়ীকে মাদক দিয়ে ফাঁসানোর সময় জনগনের হাতে ধরা খায়। পরে তোপের মুখে সব সত্য বলে দেয় ভ্যানচালক।

এছাড়াও আইজিপি বরাবর শামীমের বিরুদ্ধে নারী কেলেংকারীসহ একাধিক অভিযোগ আগেই দায়ের করা হয়েছে বলে জানান ওই ইউপি সদস্য।

নিউজনাউ/এবি/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...