কোয়ারেন্টিন না মেনে হাসপাতালে ২ চিকিৎসক!

কক্সবাজার প্রতিনিধি:
কোয়ারেন্টিন না মেনে সর্বত্র বিচরণ করছেন খোদ কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক সহ ২ চিকিৎসক। আজও দুই চিকিৎসক ঐ করোনা রোগীর সাথে সাক্ষাত করেছেন।

করোনা ঝুঁকিতে থাকে দুই চিকিৎসকের বিচরণে পুরো হাসপাতাল জুড়ে আতংকের সৃষ্টি হয়েছে। আতংক বিরাজ করছে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের মাঝেও।

মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) নিজেই কোয়ারেন্টিন থাকার কথা জানালেও আজ তা অস্বীকার করছেন কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মঙ্গলবার সৌদিআরব থেকে আসা এক বৃদ্ধার করোনাভাইরাস সনাক্ত হয়। এর পরই ঐ রোগীর সরাসরি সংস্পর্শে যাওয়া হাসপাতালের তত্বাবধায়ক, ৯ চিকিৎসকসহ ১৪ জনকে কোয়ারেন্টিনে যাওয়ার অফিস আদেশ জারি করা হয়। এরপরই হাসপাতালের ৯ চিকিৎসক সহ ১৪ জন কোয়ারেন্টিনে চলে যান।

তবে বুধবার (২৫ মার্চ) সকাল থেকেই কোয়ারেন্টিনে থাকা কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. মো. মহি উদ্দিন ও সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. শামশুদ্দিন সকাল থেকে হাসপাতালে অফিস করছেন ও রোগী দেখছেন।

এর মধ্যে তত্বাবধায়ক ডা. মহিউদ্দিন সকালে ও দুপুরে করোনা রোগীর সাথে দেখা করেছেন। তিনি ঐ করোনা রোগীকে খাবারও সরবরাহ করেছেন।

কোয়ারেন্টিনে থাকা দুই চিকিৎসকের আসার খবরে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল জুড়ে আতংকের সৃষ্টি হয়। এই সময় হাসপাতালের ডিউটিতে থাকা অন্য চিকিৎসকরাও আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। অনেক চিকিৎসক দ্রুত হাসপাতাল ত্যাগ করেন। এই ঘটনায় পুরো কক্সবাজার সদর হাসপাতাল জুড়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এই ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. মহিউদ্দিন বলেছেন, গতকাল তার কোয়ারেন্টিনে যাওয়ার আদেশ হলেও তারা দুই চিকিৎসক কোয়ারেন্টিনে যাওয়ার প্রয়োজন মনে করছেননা। সবকিছু তিনি আল্লাহর উপর ছেড়ে দিয়েছেন।

তিনি আরো জানান, আজ করোনা আক্রান্ত ঐ রোগীকে দুইবার খাবার সরবরাহ করেছেন। তার কোন ধরনের সমস্যা হচ্ছেনা।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন জানিয়েছেন, কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. মহি উদ্দিনকে ও ডা. শামশুউদ্দিনসহ ১৪ জনকে মঙ্গলবার থেকে কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।  চিকিৎসকদের কোয়েরেন্টিন না মানা খুবই উদ্বেগ জনক। এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজনাউ/এবি/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ