করোনার প্রভাবে মৃৎশিল্পে জড়িত পরিবারগুলো বিপাকে

আল এমরান, মাগুরা প্রতিনিধি: করোনার প্রভাব পড়েছে দেশের মৃৎ শিল্পেও। কাঁদা-মাটি আর হাতের  নিপুণ ছোড়াই তৈরি গৃহে ব্যবহার্য তৈজসপত্র থেকে শুরু করে মাটির নানা জিনিসপত্র বানিয়েই জীবিকা নির্বাহ করছে মাগুরার বরই গ্রামের পালপাড়ার অর্ধশতাধিক মৃৎশিল্পীরা।

কিন্তু করোনা সংক্রমণের কারণে তারা এখন অলস সময় পার করছে। আর পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে।

প্রতি বছর নববর্ষ, বৈশাখী মেলা, পূজা উৎসব ও চৈত্র সংক্রান্তি, ঘোড়দৌড়, লাঠি খেলা ছাড়াও গ্রাম্য বিভিন্ন মেলা উপলক্ষে জেলার বিভিন্ন স্থানে মেলা বসে। আর এ জন্য তারা সারা বছরই থাকতো কর্মচঞ্চল। কিন্তু করোনার কারণে নেই কোনো ব্যস্ততা, কাজের প্রতি নেই কোনো আগ্রহ।

সরজমিন মাগুরা সদর উপজেলার বরই গ্রামের পালপাড়া যেয়ে দেখা যায়, মৃৎশিল্পীদের নেই ব্যস্ততা। কাজ না থাকায় অনেকেই বেকার। করোনার জেরে বিপর্যস্ত গোটা জনজীবন। বাইরে থেকে মহাজনরা পাল পাড়ায় এসে মাটির জিনিস পত্রের বায়না দিয়ে যায়।

কিন্তু এবার মহামারি করোনার কারণে বাইরে থেকে পাইকারি ব্যাপারীদের আনাগোনা কম। করোনার আগে বা এ সময়ে পোড়া মাটির তৈরি নানা ধরনের জিনিসপত্র অবিক্রীত অবস্থায় পড়ে আছে। জিনিসপত্র বিক্রি না হওয়াতে নতুন করে আর কোনো জিনিসপত্র তৈরির আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে তারা।
বরই গ্রামের পাল পাড়ার অপূর্ব পাল জানান, আমাদের পূর্বপুরুষদের হাত ধরেই আমার এ মৃৎশিল্পের ব্যবসা করে আসছি । নানা বাধা-বিপত্তি, রোদ-বৃষ্টি-ঝড় উপেক্ষা করে আমরা মাটির জিনিসপত্র বানাই ।

মাটির জিনিসপত্র তৈরিতে এঁটেল মাটি, বালিসহ সকল সরঞ্জামই কিনে এনে তৈজসপত্র বানাতে হয়। করোনার আগে কিছু জিনিসপত্র বানিয়েছিলাম। সেগুলো পোড়ানোও হয়েছে। কিন্তু বিক্রি না হওয়াতে বিপাকে আছি ।

অতুল পাল জানান, আমাদের পালপাড়া এসে পাইকেরী মহাজনরা মাল কিনে নিয়ে যায়। তাদের ব্যবসাও ভালো যাচ্ছে না। তারা সামান্য কিছু জিনিসপত্র নিচ্ছে। তাছাড়া পহেলা বৈশাখ মেলাও এবার হয়নি । ফলে আর্থিকভাবে বড় ধরনের ক্ষতিতে পড়েছি। আমরা সরকার বা অন্য কোনো সংস্থা থেকে এখনো পর্যন্ত কোনো সাহায্য সহযোগিতা বা অনুদান পাইনি।

করোনা মহামারি কারণে হয়নি কোন পূজা উৎসব আর মেলা। তারপর তৈরিকৃত চাড়ি, ঢাকুন, মালসা, কোয়েল দানিসহ নানা জিনিসপত্রের দোকানেও তেমন বিক্রি নাই। তাই মৃৎশিল্পীদের পথে বসারই উপক্রম হয়েছে ।

নিউজনাউ/এফএফ/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
Loading...