পাগল হতে আর বাকি কোথায়!

সামিয়া রহমান:
মৃত্যুও আজ শুধুমাত্র সংখ্যাই বটে। লকডাউনও আর হবেনা। কারফিউও হবে না। আক্রান্ত হবে প্রায় প্রত্যেকে। হয়তো আর ২০/৩০ দিনের মধ্যে লাখের ঘরও পার করবো আমরা। অনেকেই আবারো প্রশ্ন তুলতে পারেন, কোথায় পেলাম এই ডেটা। আমিতো ডাক্তার নই, ভাইরোলজিস্টও নই, বিশেষজ্ঞও নই। কিন্তু মে মাসের ৪ তারিখেও বলেছিলাম প্রতি সপ্তাহে আমরা ১০ হাজার অতিক্রম করবো। তাইতে অনেকের কি রাগ!  আজ জুনের ৫ তারিখ। আমরা কিন্তু ৬০ হাজার পার করে ফেলেছি! শুধুমাত্র অস্বীকার, জেদ, অহংকার, গোঁড়ামি করে আমার নিজেদের ধ্বংস করলাম। কারণ অর্থনীতি সচল রাখা জরুরি। আবার আমরা শুধু গার্মেন্টস কর্মীদের কথাই বলি। কিন্তু জানেন কি, এই বাংলাদেশে প্রচুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে যাদের বিভিন্ন ব্রাঞ্চে অজস্র কর্মী কাজ করে। তিন মাস ধরে তাদের কোনোই বেতনই দেয়না কর্তৃপক্ষ। অথচ মালিক বা মালকিনরা প্রতি মাসে কয়েক কোটি টাকা আয় করতেন তাদের প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে। ইচ্ছে করেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর নাম নিলাম না সম্পর্কের খাতিরে। কিন্তু প্রশ্ন হল, যে অর্থনীতির কথা বলে সবাইকে রাস্তায় নামানো হলো, সেই অর্থনীতি কোন কাজে আসছে এখন। আর কত মানুষ আক্রান্ত হলে টনক নড়বে কারো! স্বাস্থ্যখাতের এতো চাক্ষুষ দুর্নীতির প্রমাণের পরও হয়না কোনো বিচার। উল্টো পত্রিকায় খবর হয় দাম বাড়িয়ে জিনিষ ক্রয়ের। এই দুঃসময়েও!  করোনার সাথে বসবাসের আদৌ কি প্রয়োজন ছিল ? শুধু  একটু যদি মানবিক বুদ্ধিটা আল্লাহ আমাদের দিতেন! করোনা প্রকৃতি প্রদত্ত অস্বীকার করছি না। কিন্তু আজ এই দুরবস্থার দায় সম্পূর্ণ আমাদের নীতি নির্ধারকরা। তারা কি ইহজীবনে শুধরাবেন বা কোনোদিনই মাথা পেতে দায় নেবেন? নাকি সব ষড়যন্ত্র বলে আবারো হাত উল্টাবেন!

প্লিজ সমালোচনা হিসেবে নেবেন না। মনে করবেন নিজের মনে পাগলের প্রলাপ বকছি! পাগল হতে আর বাকি কোথায়!

 

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

(ফেসবুক টাইমলাইন থেকে নেয়া)

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...