চবিতে করোনাকালে কী টোটকা দিলেন শাইখ সিরাজ!

চবি প্রতিনিধি: একেতো করোনাকাল, তার উপর কৃষি ও উন্নয়ন নিয়ে দুশ্চিন্তার অন্ত নেই। এমন পরিস্থিতিতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আজ রবিবার এক ওয়েবিনারে কী টোটকা দিলেন দেশের কৃষি ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ?

তিনি সোজাসাপ্টা বলেছেন, বাংলাদেশের উন্নয়নে কৃষি ও উন্নয়ন সাংবাদিকতার কোন বিকল্প নেই। শিক্ষার্থীদের পাশ করে বেরিয়ে চাকরি না খুঁজে নিজেই উদ্যোক্তা হতে হবে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ এবং জার্মানির ডয়চে ভেলে (DW) একাডেমির যৌথ উদ্যোগে ওয়েবিনারে (অনলাইন আলোচনা সভা) এমনটাই বলেছেন বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ।

রবিবার (১৯ জুলাই) সকালে “কোভিড ১৯: খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টির জন্য সাংবাদিকতা” শীর্ষক এই ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি আরো বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশের উন্নয়ন কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। এ অবস্থায় কৃষি খাত আমাদের আশার আলো দেখাতে পারে। বর্তমান বাস্তবতায় সরকারের সঠিক পরিকল্পনা ও কৃষি খাতে আধুনিক প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখা সম্ভব। আর এক্ষেত্রে জোরালো ভূমিকা পালন করতে পারে কৃষি ও উন্নয়ন সাংবাদিকতা।

ওয়েবিনারের মূল আলোচনায় চ্যানেল আইয়ের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও বার্তা বিভাগের প্রধান শাইখ সিরাজ কৃষি ও উন্নয়ন সাংবাদিকতায় আরও বেশি গুরুত্ব দিতে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ এবং গণমাধ্যমের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান। তিনি করোনা বা অন্য যেকোনো চ্যালেঞ্জের মুখে সাংবাদিকদের এগিয়ে চলার জন্য উৎসাহিত করেন।

চবি যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সভাপতি মো. শহীদুল হক বাংলাদেশের কৃষি ও উন্নয়ন সাংবাদিকতায় শাইখ সিরাজের অসামান্য অবদান তুলে ধরেন। তিনি দেশ-বিদেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাথে বিভাগের সম্পর্ক আরও জোরদার করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

মো. শহীদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ ওয়েবিনারে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন জার্মানভিত্তিক গণমাধ্যম সংস্থা ডয়চে ভেলে একাডেমির বাংলাদেশ কান্ট্রি ম্যানেজার প্রিয়া এসেলবর্ন। ডয়চে ভেলে একাডেমির বাংলাদেশ কনসালটেন্ট লুৎফা আহমেদ, বিভাগের শিক্ষক মোহাম্মদ মোরশেদুল ইসলাম, আবুল কালাম আজাদ, শাহাব উদ্দিন, মুহাম্মদ যাকারিয়া, মাধব চন্দ্র দাস, রেজাউল করিম, সায়মা আলম, আসাদুজ্জামান, রাজীব নন্দী ও সুদীপ্ত শর্মা এতে অংশগ্রহণ করেন।

করোনার কারণে সৃষ্ট প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও বিভাগের বিভিন্ন বর্ষের বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী এতে অংশ নেন। প্রধান আলোচকের আলোচনা শেষে প্রশ্নোত্তর পর্বে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন ও মুক্ত আলোচনায় খাদ্য নিরাপত্তা, পুষ্টি, কৃষি ও উন্নয়ন সাংবাদিকতার নানান দিক তুলে ধরা হয়।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...