ডা. ফয়সালের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক

চট্টগ্রাম ব্যুরো: বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের (বিএমএ) চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়সালের বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

করোনাকালে চট্টগ্রামে স্বাস্থ্যখাতে বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগে শুরু থেকেই বিতর্কিত ছিলেন চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. ফয়সল।

দুদকের প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশে রবিবার থেকে তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধানে নামে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়, চট্টগ্রাম-২ এর সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ শরীফ।

অনুসন্ধানকারী চলতি বছরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল ও জেনারেল হাসপাতালের বিভিন্ন কেনাকাটা ও সরবরাহ সংক্রান্ত দরপত্রের তথ্য চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন।

অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা দুদক, চট্টগ্রাম-২ এর উপসহকারী পরিচালক শরীফ উদ্দিন অনুসন্ধান শুরুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গত সপ্তাহে অনুসন্ধান কর্মকর্তা হিসেবে চিঠি পেলেও মূলত রবিবার থেকে আনুষ্ঠানিক অনুসন্ধান শুরু করেছি। ব্যক্তি বিশেষ নিয়ে অনুসন্ধান শুরু হলেও এর আওতা হবে অনেক বড়। আমরা বিভিন্ন ব্যাংক এবং সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালসহ প্রত্যেকটা দপ্তরে তথ্য চেয়ে চিঠি দেবো। হাসপাতালগুলোর পরিচালক ও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদেরও ডাকা হবে তদন্ত কার্যালয়ে। নির্ধারিত সময়ে অনুসন্ধান রিপোর্ট জমা দেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, অনুসন্ধানে ফয়সাল ইকবালের বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, নিয়োগ ও বদলী বাণিজ্য, ক্লিনিক ব্যবসা, কমিশন ব্যবসা, করোনাকালীন দুর্নীতিসহ জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান করা হবে। এ বিষয়ে ফয়সল ইকবাল চৌধুরীর বক্তব্য জানার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
Loading...