করোনা থেকে বাঁচতে কর্মস্থলে যেভাবে সুরক্ষিত থাকবেন

নিউজনাউ ডেস্ক:

করোনাঝুঁকি মাথায় নিয়েই জীবিকার তাগিদে কর্মস্থলে ছুটতে হচ্ছে অনেকের। এই অবস্থায় নিজের সুরক্ষা কথা প্রথমেই নিজেকে ভাবতে হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, মাস্ক পরতে হবে, নিজের হাতদুটোকে খুব বেশি পরিচ্ছন্ন করতে হবে। করোনার মধ্যে একটু নিশ্চিন্তে অফিস করার জন্য আপনার জন্য থাকছে কিছু পরামর্শ-

কর্মক্ষেত্রে পৌঁছানোর পরে সাবান দিয়ে ভালো করে হাত ধোবেন। ব্যাগে অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখুন। কর্মস্থলে হাতধোয়ার ব্যবস্থা না থাকলে সেটা ব্যবহার করুন। তবে খাওয়ার আগে অবশ্যই সাবান পানি দিয়ে হাত পরিষ্কার করবেন।

অফিসে বসার ব্যবস্থা পাশাপাশি হলে চেয়ারের মাঝের ব্যবধান বাড়িয়ে নিন। অন্যের থেকে কমপক্ষে ছয় ফুট দূরত্ব বজায় রাখুন। কর্মক্ষেত্রে অনেকেই সহকর্মীর সঙ্গে খাবার ভাগ করে খান। আপাতত তা বন্ধ করুন।

অফিসে প্রতিদিন জীবাণুনাশক দিয়ে আপনার ডেস্ক, টেলিফোন, মোবাইল, কিবোর্ড ও মাউস পরিষ্কার করে নিন।

অফিসে থাকাকালীন পুরো সময়টা মাস্ক ব্যবহার করুন। মাস্কের ওপরে স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। মাস্ক মুখ থেকে খুলে নিজের ডেস্কে বা অন্যের ডেস্কে রাখবেন না। শুধু মাস্ক পরলেই হবে না। এর ব্যবহারবিধিটা জানাও জরুরি। সুতির কাপড়ের মাস্ক পরলে মোটা কাপড়ের মাস্ক ব্যবহার করা উচিত। এটি ব্যবহারের পর প্রতিদিন ধুতে হবে।

যতটা সম্ভব লিফট ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন। লিফট যদি ব্যবহার করতেই হয় তাহলে আপনার হাত দিয়ে লিফটের বাটন স্পর্শ করবেন না। লিফটের বাটন টিপতে আপনার কনুই ব্যবহার করতে পারেন। জনাকীর্ণ বা তিনজনের বেশি হলে লিফটে উঠবেন না। পরের সময়ের জন্য অপেক্ষা করুন। যদি সিঁড়ি ব্যবহার করেন, তাহলে রেলিং স্পর্শ করবেন না।

অফিসে ওয়াশরুম ব্যবহারের পর হাত ভালোমতো জীবাণুমুক্ত করুন। হাত ধোয়ার স্থানে সবাই একসঙ্গে ভিড় করবেন না। হাত দিয়ে দরজা না খুলে, পা দিয়ে ঠেলে খুলতে পারেন। একান্তই স্পর্শ করতে হলে আঙুলের মাথা দিয়ে করুন।

অফিসে যাওয়া এবং আসার ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করুন। প্রতিদিন একটি করে সার্জিক্যাল মাস্ক ব্যবহার করুন। নিজেকে বাঁচাতে ফেস শিল্ডও পরতে পারেন।

এয়ারফোন, মোবাইল চার্জার, পাওয়ার ব্যাংক, ল্যাপটপ চার্জার নিজেরটা ব্যবহার করুন। অন্যের কাছ থেকে আপাতত এগুলো নেবেন না।

চা বা কফি পানের অভ্যাস থাকলে অফিসে সুরক্ষিত থাকতে এ সময়ে বাসা থেকে ফ্ল্যাক্সে করে চা বা কফি নিয়ে আসতে পারেন। দুপুরের খাবারে নিজের ডেস্কে খাওয়ার চেষ্টা করুন। অফিসে বাইরের খাবার যতটা সম্ভব না খাওয়ার চেষ্টা করুন।

হ্যান্ডশেক বা কোলাকুলি করা থেকে বিরত থাকুন। একসাথে হয়ে আড্ডা দেবেন না। আর অফিসে কাজ শেষ করে অযথা বসে থাকবেন না। যত দ্রুত সম্ভব অফিস ত্যাগ করুন।

নিউজনাউ/এসএইচ/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...