শারীরিকের চেয়ে বেশি মানসিক ঝুঁকিতে সাংবাদিকরা

নিউজনাউ ডেস্ক: করোনাভাইরাসে প্রতিনিয়তই কেড়ে নিচ্ছে প্রাণ। ধীরে ধীরে পৃথিবী লকডাউন হয়ে যাওয়াতে মানুষ হয়ে যাচ্ছে গৃহবন্দী। কিন্তু কিছু পেশার মানুষ যেমন: ডাক্তার, আইন-শৃংখলা বাহিনী ও সাংবাদিকরা ঠিকই বাইরে থাকছে পেশাগত কাজে।

এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানসিক ঝুঁকিতে রয়েছেন সাংবাদিকরা। কারণ তারা পাঠকদের জন্য খুঁজে বের করে আনার চেষ্টা করছেন অনেক ভেতরের গল্প। যেখানে থাকছে অনেক হৃদয়বিদারক ঘটনা। যা খুব ভয়ংকরভাবে প্রভাব ফেলছে তাদের মস্তিষ্কে।

অতীতেও দেখা গেছে পৃথিবীর অনেক সাংবাদিকই এমন কোন হৃদয়বিদারক রিপোর্ট করতে গিয়ে ট্রমায় চলে গেছেন। এখন পুরো পৃথিবীতেও এমন এক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এছাড়াও করোনা থেকে মুক্তি পেতে অনেক সাংবাদিকই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছে। যা তাদের মনে আরও ভয়ংকর প্রভাব ফেলছে।

গ্লোবাল ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম নেটওয়ার্ক এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, যেখান থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো নিচে তুলে দেয়া হল।

মানসিক আঘাতের শারীরিক প্রতিক্রিয়া:

– বিপদে পড়লে মানুষের শরীর যেমন প্রতিক্রিয়া দেখায়, এখানেও ঠিক তেমনই। এমন পরিস্থিতিতে আপনার শরীর অ্যালার্টের অবস্থায় চলে যায়, সুরক্ষা ব্যবস্থাগুলো সক্রিয় হয় এবং এটি আপনার মস্তিস্কে রাসায়নিক প্রভাব ফেলে।

– এসময় আপনি যন্ত্রণা, বেদনা অনুভব করবেন–এটাই স্বাভাবিক।

– শারীরিক ও মানসিক; আপনার প্রতিক্রিয়া হবে দুই ক্ষেত্রেই।

আপনার হার্টবিট যদি বেড়ে যায়, ঘাম হতে থাকে, কান্না শুরু করেন বা শারীরিক যন্ত্রণা শুরু হয়, তাহলে নিজের সুরক্ষার জন্য আরো পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন মনোবিদরা।

মানসিক স্ব-সুরক্ষার ব্যবস্থা:

– একটু থামুন, শ্বাস নিন।
– কিছু সময় কাজ বন্ধ রাখুন। সম্ভব হলে, ঘরের বাইরে যান, অল্প সময়ের জন্য হলেও। লাফালাফি বা দৌড়াদৌড়ি করুন। এই চলাফেরা, অবস্থার পরিবর্তন আপনাকে সাহায্য করবে আবেগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে।
– যদি ঘর থেকে বেরুতে না পারেন, তাহলে শরীরের অবস্থান পরিবর্তন করুন। যতটা আরাম করে বসা সম্ভব, বসুন। আর মেরুদণ্ডটা সোজা রাখবেন। নিজের শরীরকে অনুভব করুন। মানসিক পীড়ার সময়গুলোতে, আমরা নিজের অজান্তে পা ভাঁজ করে ফেলি বা হাত মোচড়াতে থাকি। এক্ষেত্রে পা ছড়িয়ে দিন এবং মাংসপেশী শিথিল করুন।
– মেঝেতে বসে পড়ুন। পা ছড়িয়ে দিন। দুই পা মাটিতে এমনভাবে রাখুন যেন মাটির স্পর্শ অনুভব করতে পারেন।
– শ্বাসপ্রশ্বাসের ব্যায়াম করুন। তিন গুনতে গুনতে শ্বাস নিন। শ্বাস ধরে রাখুন পাঁচ গোনা পর্যন্ত। এরপর আট পর্যন্ত গুনে নিঃশ্বাস ছাড়ুন।

মানসিক চাপ সামলাবেন যেভাবে:
– সাক্ষাৎকারগুলো সঙ্গে সঙ্গেই লিখে ফেলার জন্য তাড়াহুড়ো করবেন না। সম্ভব হলে, মানসিক চাপের মধ্যে পড়তে হবে, এমন জিনিসগুলো একটু সরিয়ে রাখুন।
– প্রতিবেদনের দৃষ্টিকোণ পরিবর্তন করুন। পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে সহনশীল ও সৃজনশীল কৌশলগুলোর কথা তুলে আনুন। যথার্থ প্রেক্ষিত তুলে আনুন, যেখানে মৃত্যুহারও থাকবে আবার সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষদের সংখ্যাও থাকবে।
– বিশ্রাম নিন। খেলাধুলা, ধ্যান, পোষাপ্রাণীর সঙ্গে সময় কাটানো বা কোনো বন্ধু–সহকর্মীর সঙ্গে খেতে যাওয়া – এসবের জন্যেও সময় আলাদা করে রাখুন।
– সহকর্মীদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলাপ করুন। সামাজিক সহযোগিতা খুব গুরুত্বপূর্ণ। একে–অপরকে সহায়তা করুন। নিউজরুমে এমন কাউকে খুঁজে নিন যার সাথে সব অভিজ্ঞতা বিনিময় করতে পারেন এবং সমাধান চাইতে পারেন।
– জটিল কোনো প্রতিবেদন নিয়ে কাজ করছে, এমন সহকর্মীকে সাহায্য–সমর্থন দিন।
– ভাবুন, কিভাবে পরিস্থিতি মোকাবিলা করবেন, কেন এটি আপনার ওপর প্রভাব ফেলছে এবং তা কাটিয়ে উঠতে কী করতে পারেন।

উপরের নিয়মগুলো মেনে চলে হয়তো আপনি কিছুটা মানসিক শান্তি পাবেন । কারন আপনি যতক্ষণ মানসিকভাবে সুস্থ থাকবেন ততক্ষণ মানুষ সুন্দর এবং সঠিক তথ্য পাবে আপনার কাছ থেকে।

নিউজনাউ/এমএএন/এমআর/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...