মন্ত্রিসভায় আসছে বড় রদবদল

নিজস্ব প্রতিবেদক: মহামারি করোনাভাইরাসে বদলে গেছে অনেক কিছু। দেশের স্বাস্থ্য খাতেও এসেছে পরিবর্তন। নানা অনিয়ম-দুর্নীতির খবরে বারবার সমালোচনার মুখে পড়েছে দেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আলোচনা-সমালোচনা চলছে সরকারের অন্য একাধিক দপ্তর নিয়েও। ফলে খুব শিগগিরই সরকারের মন্ত্রিসভায়ও রদবদলের আভাস দিচ্ছে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্র।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো বলছে, এ মাসের মাঝামাঝি সময়ে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা আছে। সেখান থেকেই দলের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড জোরদারের নির্দেশ আসতে পারে। এরপরই আসবে মন্ত্রিসভায় রদবদল।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ মারা যাওয়ায় এই মন্ত্রণালয়ে নতুন কাউকে নিয়োগ দেয়া হবে। করোনাকালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ভূমিকা নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এমনকি জাতীয় সংসদেও স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেককে সরিয়ে দেওয়ার দাবি উঠেছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বিপুল ভোটে জয়লাভের পর গত বছর ৬ জানুয়ারি টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করেন শেখ হাসিনা। মন্ত্রিসভার ৪৭ সদস্যের ২৭ জনই প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভায় স্থান পান।

এই মন্ত্রিসভায় গঠনের চার মাসের মাথায় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করা হয়। এরপর ১২ জুলাই প্রতিমন্ত্রী থেকে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পূর্ণ মন্ত্রী হন ইমরান আহমেদ। মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নতুন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান ফজিলাতুন নেসা।

সর্বশেষ গত ফেব্রুয়ারি মাসে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়। সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদকে গণপূর্তের প্রতিমন্ত্রী করা হয়। মৎস্য প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খানকে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী করা হয়।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সূত্রে জানা গেছে, করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের অনেক মন্ত্রণালয় ও বিভাগের কর্মকাণ্ড নিয়ে নানা মহলে প্রশ্ন উঠেছে। বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ গুরুত্বপূর্ণ কোনো কোনো মন্ত্রণালয়েও পরিবর্তনের আভাস আছে। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী নিয়োগের সময় অন্য দু-একটা মন্ত্রণালয়ে সংযোজন, বিয়োজন বা পরিবর্তনের আভাস মিলেছে।

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...