মন্ত্রিসভার রদবদল এমাসে; রাষ্ট্রপতি ফিরলেই!

 

আবু তাহের বাপ্পা : মন্ত্রিসভায় বড় ধরণের রদবদল আসছে। নতুন মুখের পাশাপাশি দেখা যাবে পুরোনো ও পরীক্ষিত মুখদের। এমন কথা শোনা যাচ্ছে, বাতাসে ভাসছে কয়েকমাস হলো। বলা হচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ল্যাপটপেই মন্ত্রিসভার মূলমন্ত্র। যখন-তখনই এ খবর গণমাধ্যমের প্রধান শিরোনাম হতে পারে।

মন্ত্রিসভার রদবদল গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে নতুন কোন খবর নয়। বাজেট অধিবেশনের আগ থেকেই জোরেশোরে শোনা যাচ্ছে খবরটি। বাজেট অধিবেশন শেষ হলেও খবরটি কিন্তু সত্যি হয়নি। অথচ, সরকারের ভেতর থেকেই চাউর হয়েছিল, মন্ত্রিসভার রদবদল সময়ের ব্যাপার মাত্র।

এখন আবার নতুন খবর ভাসছে হাওয়ায়। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বর্তমানে চিকিৎসার জন্য দুবাই রয়েছেন। তিনি দেশে ফিরবেন ২২ অক্টোবর। এরপরই নাকি আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসছে মন্ত্রিসভা রদবদলের। তবে এটি গুঞ্জন নাকি সত্যি, তা কেবল সময়ই বলতে পারবে।

কেন মন্ত্রিসভা রদবদলের খবরটি ঘুরে ফিরে আসছে? কারণ হলো, দীর্ঘদিন ধরেই মন্ত্রিসভার একটি পদ শুণ্য রয়েছে। যার দায়িত্ব পালন করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ধর্ম মন্ত্রণালয়েও মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রী নেই। শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ করোনায় মারা যা্ওয়ার পর থেকে সব সামলাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। শুধু তাই নয়, গৃহায়ন ও গণপূর্থ মন্ত্রণালয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ে পূর্ণমন্ত্রী নেই। আছেন কেবল একজন প্রতিমন্ত্রী। মহামারী করোনার সময় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে গণমাধ্যমে। অনেকে বলছেন, এখানেও রদবদল হতে পারে। যুক্ত হতে পারেন প্রতিমন্ত্রীও। যদিও, সাংবিধানিকভাবে মন্ত্রিসভা পরিবর্তন, পরিবর্ধনের এখতিয়ার শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রীর হাতে। তাঁর উপরই নির্ভর করছে মন্ত্রিসভা একই থাকবে নাকি রদবদল হবে? আর পরিবর্তন হলে নতুন মুখ বা পুরোনো মুখ থাকবে? কে কে থাকবে?

পাঠকদের প্রতি অনুরোধ, গুঞ্জনে না মেতে অপেক্ষা করাই ভালো। আলোচনার টেবিলে আমরা যতই ঝড় তুলি না কেন, একমাত্র সরকার প্রধানই বলতে পারবেন সত্যিটা কি!

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...