২০ কোটি টাকা বই দুর্নীতি, ব্যবস্থা নিচ্ছে সরকার

নিউজনাউ ডেস্ক: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ জেল থেকে প্রকাশিত বঙ্গবন্ধু বিষয়ক দুইটি বইয়ের গ্রন্থস্বত্ব ও মেধাস্বত্ব চুরির মাধ্যমে ২০ কোটিরও বেশি টাকা হাতানোর চেষ্টা ঘটনায় তদন্তে নেমেছে সরকার। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এরই মধ্যে এটি নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করছে, এরপরই নেওয়া হবে ব্যবস্থা। বিষয়টি নিশ্চিত বা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত চেক ছাড়বে না প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর।

অন্যদিকে মেধাস্বত্ব দাবি করে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক এবং মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তাকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন সম্পাদক অমিতাভ দেউরী।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব এ বিষয়ে জানান, তারা এ বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়েও চিঠি পাঠানো হয়েছে, মন্ত্রী ও সচিবের সঙ্গেও কথা হয়েছে।

কারা অধিদফতরের বই সম্পর্কে আইজি প্রিজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা জানান, এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা নেই তার। তবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে একটি কাগজ চাওয়া হলে মন্ত্রণালয়কে কাগজ পাঠানো হয়।

সাংবাদিক অমিতাভ দেউরী জানান, মন্ত্রণালয়, অধিদফতর বা সংশ্লিষ্ট কেউ কিছু জানাননি। তিনি জানতে পারেন তার নাম মেধাস্বত্ব যেভাবে সংরক্ষিত ছিল তা আর নেই। তিনি তার অধিকার ফিরে পেতে চান, প্রয়োজনে আইনি ব্যবস্থা নিতেও প্রস্তুত। দুই মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরে সংশ্লিষ্টদের লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ জেল থেকে প্রকাশিত বঙ্গবন্ধু বিষয়ক দুইটি বইয়ের মেধাস্বত্ব ও গ্রন্থস্বত্ব চুরির অভিযোগ উঠেছে।

১৭ কোটি ৫৭ লাখ ৫৬ হাজার ৫০০ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে প্রকাশনা সংস্থা জার্নি মাল্টিমিডিয়া লিমিটেড, অভিযোগ এমনটাও। এছাড়া স্বাধীকা পাবলিশার্সের নামের একটি প্রকাশনা হাতিয়ে নিচ্ছে আরও ৩ কোটি ১৩ লাখ ৩৮ হাজার ৯০০ টাকা। মুজিববর্ষে দেশের ৬৫ হাজার ৭০০ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ‘বঙ্গবন্ধু বুক কর্নারের’ জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের বই কেনা প্রকল্পে এই দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

আরও উল্লেখ রয়েছে, প্রকল্পের মোট ২৮ কোটি ৭৮ লাখ ১২ হাজার ২০০ টাকার মধ্যে ২০ কোটি ৭০ লাখ ৮৬ হাজার ৪০০ টাকাই পাচ্ছেন দুটি প্রতিষ্ঠানের নামে এক ব্যক্তি। নাজমুল হোসেন নামে এই ব্যক্তি যমুনা টেলিভিশনে সিনিয়র রিপোর্টার হিসেবে কর্মরত।

এ বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী এ কে এম মোজাম্মেল হক জানান, বই নিয়ে মন্ত্রণালয়ের এক পয়সার ইনভল্ভমেন্ট নেই। শুধু ছাপার অনুমোদন দিয়েছি। তারা নিজস্ব অর্থায়নে বই করেছে। আমাদের নাম ব্যবহার করবে সে জন্য আমাদের রয়্যালিটি দেবে যখন তারা বিক্রি করবে। আমরা প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছিলাম একা পারিনি, তাই প্রাইভেট পার্টি বই প্রকাশ করেছে।

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের বই নাজমুল ছেপেছেন কিনা জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, বইটিতে প্রধানমন্ত্রীর লেখা, ইতিহাস বিভাগের একজন শিক্ষকের লেখা এবং আমার একটি লেখা রয়েছে বইটিতে। বইটিতে তিনটি মাত্র আর্টিকেল রয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের গত ক্রয় প্রতিবেদনে (স্মারক নম্বর ৩৮০১০০০০০০৫০৭৭০, ১৯-১২৫৪) দেখা গেছে, ৮টি বইয়ের মধ্যে ৩ বইয়ের সঙ্গেই যুক্ত যমুনা টেলিভিশনের সাংবাদিক ও জার্নি মাল্টিমিডিয়ার প্রধান নির্বাহী নাজমুল হোসেন। মোট ৮টি বইয়ের তালিকায় জার্নি মাল্টিমিডিয়ার নামে রয়েছে দুটি বই আর স্বাধীকা পাবলিশার্স নামের আছে একটি বই।

‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ বইটির প্রথম সংস্করণে উল্লেখ আছে বইটির প্রকাশক ‘মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়’ এবং বইগুলো কেনার যে প্রাথমিক তালিকা করা হয়, সেখানেও বইটির প্রকাশক হিসেবে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়েরই নাম রয়েছে। ‘৩০৫৩ দিন’ বইটির লেখক বা প্রকাশক বাংলাদেশ কারা অধিদফতর এবং এর গ্রন্থস্বত্বে রয়েছে বাংলাদেশ জেল। এই বইটির ক্ষেত্রেও প্রথম তালিকায় থাকা লেখক বা প্রকাশকের নাম রয়েছে ‘বাংলাদেশ কারা অধিদফতর এবং গ্রন্থস্বত্ব ‘বাংলাদেশ জেল’-এর। তারপরও চূড়ান্ত ক্রয় প্রতিবেদনে দুটি বইয়ের ক্ষেত্রে সম্পাদক নাজমুল হোসেন ও প্রকাশকের নাম জার্নি মাল্টিমিডিয়া দেখা যাচ্ছে।

একইসঙ্গে নাজমুল হোসেন স্বাধীকা পাবলিশার্স এরও মালিক। বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ সন্তান শেখ রাসেলকে নিয়ে অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদের সম্পাদিত বই, ‘অমর শেখ রাসেল’ প্রকাশিত হয়েছে এই প্রকাশনী থেকে। এটি স্বাধীকা পাবলিশার্সের প্রথম বই। স্বাধীকা পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত অন্য কোনো বইয়ের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি।

সরকারি ক্রয়নীতি অনুযায়ী আড়াই শতাংশ জামানত বাবদ তিনটি বইয়ের জন্য দরপত্রের শর্তানুযায়ী নাজমুল হোসেনকে জামানত দিতে হয়েছে ৫১ লাখ ৭৭ হাজার ১৬০ টাকা। এর বিপরীতে ব্যাংক সলভেন্সি দেখাতে হয়েছে মোট দামের ন্যূনতম ১০ শতাংশ হিসেবে ২ কোটি টাকার বেশি।

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় প্রকাশিত ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ বইটির প্রকাশক বদল ও ক্রেডিট লাইন বারবার পাল্টানোর ঘটনায় বইটির সম্পাদক অমিতাভ দেউরী গত ৩ আগস্ট মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক, মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন-২) মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা এবং নাজমুল হোসেনের নামে একটি লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীর সুস্পষ্ট নির্দেশনার বঙ্গবন্ধু কর্নারের জন্য বিতর্কিত প্রাথমিক ৩৯টি বইয়ের তালিকা সংশোধিত হয় লেখক ও প্রকাশকদের বিপুল প্রতিবাদ ও আলোচনা সমালোচনার মুখে।‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ ২০১৮ সালে ৭ জুন বইটি প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়।
অথচ এই বইটি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের গত ২৭ জুনের প্রজ্ঞাপনে দেখা যাচ্ছে—বইটির সম্পাদকের নাম অমিতাভ দেউরী অবিকৃত থাকলেও বদলে গেছে প্রকাশকের নাম। প্রজ্ঞাপনে দেখা যাচ্ছে প্রকাশক জার্নি মাল্টিমিডিয়া লিমিটেড। যদিও প্রথম সংস্করণে আছে বইটির প্রকাশক মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। আর বইগুলো কেনার প্রাথমিক তালিকায় বইটির প্রকাশক মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়।

দ্বিতীয় সংস্করণে দেখা গেছে ক্রেডিট লাইনের সবার নিচে থেকে একেবারে সম্পাদকের নামের ওপরে উঠে এসেছেন নাজমুল হোসেন। তার পরিচয় দেখানো হয়েছে প্রধান গবেষক ও প্রধান নির্বাহী, জার্নি।

তৃতীয় সংস্করণে আমূল পরিবর্তন দেখা গেছে। প্রকাশকেরই নাম বদলে গেছে। প্রকাশক মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের জায়গায় ‘সমন্বয়ক ও প্রকাশক’ হিসেবে ছাপা হয়েছে নাজমুল হোসেনের স্ত্রী শারমীন সুলতানার নাম। সব সংস্করণেই উপদেষ্টা কিংবা প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের নাম রয়েছে।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে নাজমুল হোসেন বলেন, জার্নি মাল্টিমিডিয়া লিমিটেড একটি গবেষণাধর্মী ও প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাথে ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ এবং জেলের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর সমগ্র কারাজীবন নিয়ে ‘৩০৫৩ দিন’ বই দুটির স্বত্ব জার্নি মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের নামে। কপিরাইট সংক্রান্ত কাগজপত্র রয়েছে। নিয়ম মেনেই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু বুক কর্নারের জন্য বই সরবরাহ করা হয়েছে। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এ নিয়ে দুঃখজনকভাবে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে।

নিউজনাউ/এসএইচ/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...