খালেদার মুক্তির মেয়াদ ছয় মাস বাড়ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার শাস্তির কার্যকারিতা আরো ছয় মাসের জন্য স্থগিত রাখার বিষয়ে সম্মতিসূচক মতামত দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ তথ্য জানিয়েছেন।

দুর্নীতির দুই মামলায় খালেদা জিয়াকে গত ২৫ মার্চ নির্বাহী আদেশে সাময়িক মুক্তি দেয় সরকার। তার দণ্ডের কার্যকারিতা ছয় মাসের জন্য স্থগিত করা হয়। কারামুক্ত খালেদার মুক্তির মেয়াদ ২৪ সেপ্টেম্বর শেষ হচ্ছে।

সে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই খালেদার পরিবারের পক্ষ থেকে তার ভাই শামীম এস্কেন্দার গত মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেন। আবেদনে তার অসুস্থ বোনের কারামুক্তিতে পদক্ষেপ নিতে সরকারকে আহ্বান জানান শামীম।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, আমাদের অভিমত আমরা দিয়েছি। উনার (খালেদা জিয়া) সাজা স্থগিত করা হয়, উনার সাজা আরও ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে মুক্তির আদেশ দেওয়া হয়েছে। শর্ত হচ্ছে তিনি আগে যে শর্তে ছিলেন অর্থাৎ বাসা ও দেশে থেকে চিকিৎসা নেবেন।

কারাগার থেকে মুক্তির পর থেকে গুলশানের ‌‘ফিরোজা’য় থাকছেন খালেদা জিয়া। আর্থারাইটিসের ব্যথা, ডায়াবেটিস, চোখের সমস্যাসহ বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছেন ৭৫ বছর বয়সী বিএনপি চেয়ারপার্সন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন খালেদা। ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে তার শাস্তি কার্যকর হয়। পরে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায়ও তার সাজার রায় দেয় আদালত।

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...