রামপালে ক্রেতাশূন্য দোকান, থেমে নেই এনজিওর সুদ!

অমিত পাল, রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি:
করোনাভাইরাস আতঙ্কে রামপালে নিত্যপণ্যের দোকান ছাড়া অন্যান্য ব্যবসায়ীদের বেচাকেনা একদম শূন্যের কোঠায় দাঁড়িয়েছে।

এমনিতেই করোনা আতঙ্ক আর তার উপর বাড়তি আতঙ্ক বিভিন্ন এনজিওর ঋণ এর কিস্তি। বেচাকেনা না থাকায় ঋণ এর কিস্তি দিতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা। এই সংকটময় অবস্থায়ও এসব আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সুদ গুনতে হচ্ছে তাদের।

সূত্রে প্রকাশ, রামপাল সদর, ফয়লাহাট সহ বিভিন্ন এলাকায় কয়েক ডজন এনজিও, মাল্টিপারপাস ও কো অপারেটিভ ঋণদান করে থাকে। এর মধ্যে নবলোক, আশা, ব্র্যাক, ব্যুরো বাংলাদেশ, কারিতাস, আরআর এফ, গ্রামীণ ব্যাংক এদের কাছ থেকে সাধারণত প্রত্যন্ত এলাকার গরীব মহিলারা, দিনমজুর বা অতিক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা এবং মাঝারী ব্যবসায়ীরা ঋণ গ্রহণ করে থাকে। এদের আয়ের উৎস একদমই সীমিত।

করোনা আতংকে দোকানপাট খোলা থাকলেও নেই কেনাবেচা। তাই কিস্তির টাকা পরিশোধ না করতে পারলেও তাদের উপর নানাভাবে জোর জবরদস্তি করার অভিযোগ করেছেন অনেকেই।

উজলকুড় ইউনিয়নের দরিদ্র ভ্যান চালক জিহাদ হোসেন জানান, ‘এখন রাস্তাঘাটে লোকজনের চলাচল কম। তাই ভ্যান চালিয়ে সংসারের জিনিসপত্র কিনতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছি। তার উপর দুইটি সমিতি ঋণের টাকা নিয়ে খুব চাপ দিচ্ছে।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরও একাধিক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী জানান, ‘ঋণ নিয়েছি, নিজে না খেলেও এদের টাকা দেয়া লাগে। কিছু কিছু এনজিও টাকা না দিলে বাড়িতে এসে জোর জবরদস্তি করে। একদিকে করোনাভাইরাস অন্যদিকে ঋণের কিস্তি, বাড়িতে থেকেও পালিয়ে বাঁচার উপায় নেই।’

আশা রামপালের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার পলাশ জানান, ‘আমাদের ঋণের কিস্তি নেওয়ার কার্যক্রম এখনও চলমান আছে। কিস্তি নেয়া বন্ধ করতে উপরের কোন নির্দেশনা পাইনি।’

নবলোকের ফয়লাহাট ব্রাঞ্চ ম্যানেজার উত্তম কুমার দাস এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত আমাদের ঋণের কিস্তি চলমান রয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের এখনও পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত আমরা জানতে পারিনি।‘

কারিতাস রামপাল ব্রাঞ্চ ম্যানেজার নার্গিস খাতুন বলেন, ‘কিস্তি বন্ধ করার কোনো নির্দেশনা এখনও পাইনি।’

আরআরএফ এর রামপাল ব্রাঞ্চ ম্যানেজার মোঃ আব্দুল ওহাব জানান, ‘আমাদের কার্যক্রম সাময়িক স্থগিত করার কোনো সিদ্ধান্ত এখনও পাওয়া যায়নি। পেলে আমরা সে অনুযায়ী কাজ করবো।’

নিউজনাউ/এবি/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ