ধর্ষকদের দ্রুত বিচারের দাবিতে উত্তাল চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম ব্যুরো: বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে ধর্ষকদের দ্রুত বিচার করে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ধর্ষণের বিরুদ্ধে সোমবার নগরের প্রেসক্লাব, চেরাগী মোড়ে বৃষ্টি উপেক্ষা করে একই সময়ে শতাধিক জমায়েত নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন ব্যানারে ৫-৬টি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

নগরের চেরাগী পাহাড় মোড়ে ‘সর্বস্তরের সচেতন নাগরিকবৃন্দ’র ব্যানারে আয়োজিত সমাবেশে সারাদেশে অব্যাহত ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনার বিচার না হওয়ায় ক্ষোভ জানান বক্তারা। তারা বলেন, দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। এ কারণে একের পর এক বর্বরোচিত ঘটনা ঘটে চলেছে। অবিলম্বে বিশেষ ট্রাইব্যুনালে ধর্ষক ও নিপীড়কদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা না গেলে এই অপরাধ প্রবণতা থামবে না। দেশের নারী সমাজকে সুরক্ষিত করতে হলে অবিলম্বে বিচারহীনতার সংস্কৃতির অবসান ঘটাতে হবে। সেই সাথে কারা এই ধর্ষকদের আশ্রয়দাতা ‘বড় ভাই’ তাদের খুঁজে বের করে শাস্তি দিতে হবে। প্রশ্রয় না পেলে এমন সীমাহীন অপরাধ প্রবণতার সৃষ্টি হতো না বলেও জানান বক্তারা।

‘শুধু গ্রেপ্তার নয়, দ্রুত বিচার নিশ্চিত কর’ এই স্লোগান নিয়ে আয়োজিত সমাবেশ থেকে ধর্ষকরে পৃষ্ঠপোষকদের চিহ্নিত করে তাদের বিচার ও সামাজিকভাবে বয়কট করারও দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কবি ও সাংবাদিক কামরুল হাসান বাদল, চট্টগ্রাম গণজাগরণ মঞ্চের সমন্বয়ক শরীফ চৌহান, আবৃত্তি শিল্পী রাশেদ হাসান, উদীচী’র সুনীল ধর, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নারী নেত্রী সিতারা শামীম, সাংবাদিক আহমেদ মুনীর, সৌমেন ধর, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে প্রচার সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী নারী শ্রমিক নেত্রী বাপ্পী দেব বর্মণ, সাবেক ছাত্রনেতা নাজিম উদ্দিন, সাংবাদিক মহররম হোসাইন, লতিফা আনসারী রুনা, হিউম্যানিটি ফার্স্ট মুভমেন্টের মিলন রায়, আবৃত্তি শিল্পী প্রণব চৌধুরী।

সাংবাদিক প্রীতম দাশের সঞ্চালনায় সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন দেশ টিভির বিভাগীয় প্রধান আলমগীর সবুজ সাংবাদিক নেতা ইফতেখার উদ্দিন, ইসলামিয়া কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাক মীর মোহাম্মদ ইমতিয়াজ, ছাত্র সংসদের এজিএস নোমান সাঈফ, ছাত্র ইউনিয়ন জেলার সভাপতি এ্যানি সেন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট চট্টগ্রাম নগরের সভাপতি রায়হান উদ্দীন, যুব ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল শিকদার, ছাত্র ফ্রন্ট নেত্রী দীপা মজুমার, সাংবাদিক কমল দাশ, সংস্কৃতি কর্মী রুবেল দাশ প্রিন্স, সাংবাদিক অনুপম শীল, ছাত্রনেতা আল আমীন, হাবিবুজ্জামান প্রমুখ।

এরপর একই স্থানে চট্টগ্রামের প্রগতীশীল ছাত্র জোট এর ‘সংহতি সমাবেশ’ অনুষ্ঠিত হয়। পাহাড় ও সমতলে নারী-শিশু ধর্ষণ, নির্যাতনের বিরুদ্ধে তাদের সংহতি সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশ থেকে ধর্ষক ও নিপীড়কদের রাজনৈতিক আশ্রয় প্রশ্রয় দান এবং বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে তোলায় শাসকগোষ্ঠীর সমালোচনা করা হয়।

ছাত্র ইউনিয়ন চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি এ্যানি সেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের নগর সভাপতি রায়হান উদ্দিন, প্রীতিলতা ব্রিগেডের সদস্য নাদিয়া নূর, ছাত্র ফ্রন্ট নেত্রী দীপা মজুমদা। সভা পরিচালনা করেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট নগরের সাধারণ সম্পাদক ঋজু লক্ষী অবরোধ।

এতে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান ডা. মাহফুজুর রহমান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক মাঈদুল ইসলাম, উদীচী চট্টগ্রামের শীলা চক্রবর্তী, নারী মুক্তি কেন্দ্রের আসমা আকতার, চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ইনচার্জ ইন্দ্রানী ভট্টাচার্য সোমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের রেশমী মার্মা, রোনাল চাকমা (পিসিপি), চট্টগ্রাম সিপিবি নারী সেল সিতারা শামীম, অগ্নিবীণা পাঠাগার এর জাহেদুল ইসলাম, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় সভাপতি মাসুদ রানা।

এছাড়াও সমাবেশে সংহতি জ্ঞাপন করেন- চবি শিক্ষক জি এইচ হাবিব, বাকবিশিস কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাহাঙ্গীর, বাসদ চট্টগ্রাম জেলার নেতা মহিন উদ্দিন, বাসদ(মার্কসবাদী) চট্টগ্রাম জেলা নেতা শফি উদ্দিন কবির আবিদ।

এদিকে সারা দেশে ধর্ষণের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়েও বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে সমাবেশে সংহতি জানায় বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন চবি সংসদ, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (জেএসএস)।

নিউজানাউ/পিপিএন/২০২০

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
Loading...