Banner Before Header

রোগের নাম গনোরিয়া

ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রামিত একটি যৌন রোগ

গনোরিয়া (Gonorrhea) ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রামিত একটি যৌন রোগ। নিশেরিয়া গনোরি (Neisseria gonorrhoeae) নামক জীবাণু এই রোগের জন্য দায়ী। সুরক্ষা ছাড়া যৌন সম্পর্ক বা ওরাল ও অ্যানাল সেক্সের কারণে গনোরিয়া ছড়িয়ে যেতে পারে। সাধারণত মূত্রনালি, পায়ুপথ, মুখগহ্বর এবং চোখ গনোরিয়ার জীবাণু দ্বারা সংক্রমিত হতে পারে। এই রোগ সাধারণত যৌনমিলন থেকে ছড়ায় এবং পুরুষ ও মহিলা উভয়েই আক্রান্ত হতে পারে। সময়মত এই রোগের চিকিৎসা না করালে পুরুষ ও মহিলা উভয়ের ক্ষেত্রেই এই রোগ আশেপাশে ছড়িয়ে যেতে পারে এবং পুরুষের এপিডিডাইমিস ও মহিলার তলপেটে প্রদাহ সৃষ্টি করতে পারে। গনোরিয়া সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়তে পারে, এমনকি এটি শরীরের অস্থিসন্ধিসমূহ ও হার্টের ভালবকেও আক্রান্ত করতে পারে।

লক্ষন এবং উপসর্গ
গনোরিয়ার স্বাভাবিক উপসর্গ হল যোনী অথবা লিঙ্গ থেকে মোটা সবুজ অথবা হলুদ তরল নিঃসরন হওয়া , মূত্রত্যাগের সময় ব্যাথা এবং মহিলাদের মাসিকের সময় রক্তপাত হওয়া। তবে, ১ থেকে ১০ জন আক্রান্ত মানুষ এবং প্রায় আক্রান্তদের অর্ধেক কোন উপসর্গের অভিজ্ঞতা পায়না।

পুরুষের ক্ষেত্রে
• মূত্রনালিতে সংক্রমণ।
• মূত্রনালি হতে পুঁজের মতো বের হয়।
• প্রস্রাব করতে কষ্ট হয়, জ্বালাপোড়া করে এবং প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যেতে পারে৷
• হাঁটু বা অন্যান্য গিঁটে ব্যথা করে, ফুলে ওঠে
• প্রস্রাব করতে কষ্ট হয় এবং এমনকি জটিল অবস্থায় প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যেতে পারে৷
• পুরুষত্বহীন হয়ে যেতে পারে৷

মহিলাদের ক্ষেত্রে
• অনেকসময় মহিলাদের কোনও লক্ষণ নাও দেখা যেতে পারে৷
• যোনিপথ আক্রান্ত হতে পারে৷
• যোনিপথে এবং মূত্রনালিতে জ্বালা-পোড়া করে৷
• পুঁজ সদৃশ হলুদ স্রাব বের হয়৷
• তলপেটে ব্যথা হতে পারে৷
• ঋতুস্রাব সংক্রান্ত সমস্যা দেখা দিতে পারে৷
• বন্ধ্যা হয়ে যেতে পারে৷

কারা আক্রান্ত হতে পারেন?
যৌনক্রিয়ায় সক্রিয় যে কেউ গনোরিয়ায় আক্রান্ত হতে পারেন, বিশেষ করে যারা নিয়মিত পার্টনার পরিবর্তন করে থাকেন অথবা জন্মনিয়ন্ত্রনের বাধা হিসেবে সেক্সের সময় কনডম ব্যবহার করেন না। গনোরিয়ার অতীত সফল চিকিৎসা পুনরায় সংক্রামিত হওয়া থেকে আপনাকে বিরত রাখবেনা।

পরীক্ষা বা রোগ নির্ণয়
গনোরিয়াকে নির্ণয় করার জন্য, শুধুমাত্র উপসর্গের উপস্থিতি যথেষ্ট নয়। ল্যাবরেটরি পদ্ধতি দ্বারা নির্ণয়ের নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয়। পুরুষদের মধ্যে তীব্র গনোরিয়া বিশ্লেষণ সাধারণত একটি সাধারণ ধূসর ফলাফল উপর ভিত্তি করে। পুরুষদের মধ্যে ক্রনিক গনোরিয়াতে, পাশাপাশি নারীর কোনও প্রকারের রোগের ক্ষেত্রে, গবেষণার আরও সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি – PCR বা বীজ – প্রয়োজন হয়।

যদি আপনার গনোরিয়ার কোন উপসর্গ থাকে অথবা আপনি যদি চিন্তিত থাকেন আপনি STI নিতে পারেন। একই সঙ্গে যতদ্রুত সম্ভবব চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিৎ।

চিকিৎসা
লক্ষণ প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে৷ ডাক্তারি পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করতে হবে৷ নাহলে পরবর্তী সময়ে নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে৷

গনোরিয়া সাধারনত একটি এন্টিবায়োটিক ইনজেকশন এবং একটি এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট দিয়ে ভাল করা যেতে পারে। কার্যকরী চিকিৎসার সাথে, আপনার বেশীরভাগ উপসর্গ কিছুদিনের মাঝে উন্নতি করা উচিৎ।

সাধারনত এক বা দু সপ্তাহের একটি তত্ত্বাবধানে থেকে চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, তাই আপনি যদি সংক্রামনের ব্যাপারে নিশ্চিত থেকে থাকেন তবে অন্য পরীক্ষাও করানো উচিৎ।

প্রতিরোধ ব্যবস্থা
• যৌনমিলনে কনডম ব্যবহার করতে হবে৷
• মহিলাদের মাসিকের সময় পরিষ্কার কাপড় এবং প্যাড ব্যবহার করতে হবে৷
• স্বামী বা স্ত্রী একজন অসুস্থ হলে দুজনেরই চিকিৎসা করাতে হবে৷
• স্বামী বা স্ত্রী ছাড়া অন্য কোনও নারী বা পুরুষের সঙ্গে দৈহিক মিলন অনুচিত৷
• যৌনমিলনে স্বামী-স্ত্রীর বিশ্বস্ততা জরুরি৷

Leave A Reply

Your email address will not be published.