Banner Before Header

দাপুটে জয় নিয়ে ফাইনালে টাইগাররা

পাকিস্তানের বিপক্ষে দাপুটে জয় নিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে পৌঁছেছে বাংলাদেশ। সরফরাজের দলের বিপক্ষে বুধবারের ম্যাচে ৩৭ রানের জয় তুলে নিয়ে টানা দ্বিতীয় বার এই টুর্নামেন্টের ফাইনালে গেল টাইগাররা।

পাকিস্তান দল শেষ পর্যন্ত সংগ্রহ করে ২০২  রান। ম্যাচের ফলাফলে রানের ব্যবধান খুব বেশি না হলেও দাপট ছিল বাংলাদেশ দলের। ২৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার দুবাইতে ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের বিপক্ষে ২৪০ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই চাপের মুখে পড়ে পাকিস্তান দল।

ইনিংসের পঞ্চম বলে মেহেদি হাসান মিরাজের বোলিংয়ে ক্যাচ তুলে দেন ফাখর জামান। ৪ বল খেলে ১ রান করে সাঁজঘরে ফেরেন তিনি।পরের ওভারের দ্বিতীয় বলেই বাবর আজমকে সাজঘরের পাঠান কাটার মাস্টার। বাংলাদেশ শিবিরে তখন অনেকটাই স্বস্তি বিরাজ করছিল কারণ ১৮ রানেই পাকিস্তানের তিন উইকেট তুলে নেন টাইগাররা। পরে শোয়েব মালিক এবং ইমাম-উল হক ৬৮ রানের জুটি গড়ে ২১তম ওভারে রুবেলের বলে শোয়েব মালিক ফেরেন।

এরপর আসিফ ও ইমাম ফেরান মেহেদি হাসান মিরাজ ও মাহমুদউল্লাহ। এরপর বাংলাদেশ দলের জয় ছিল অপেক্ষা মাত্র। শেষ পর্যন্ত ৫০ ওভারে ২০২ রান সংগ্রহ করে পাকিস্তান দল।

এর আগে এশিয়ার সবচেয়ে বড় এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের  সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। তবে আগের দুই ম্যাচের মতো আজও ব্যর্থ হয় বাংলাদেশের ওপেনিং জুটি।

দলে ফিরে রানের খাতাই খুলতে পারেননি সৌম্য। ব্যর্থতার কাতারে নাম লেখান লিটন ও মুমিনুলও। দলীয় ১২ রানেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন টাইগারদের তিন ব্যাটসম্যান। এরপর আবারো হাল ধরেন মুশফিক। মিথুনকে সঙ্গী করে ১৪৪ রানের জুটি গড়ে বিপর্যয় সামাল দেন তিনি। ৬০ রানে মিথুনকে বিদায় করে এ জুটি ভাঙেন হাসান আলি।

ক্যারিয়ারের ৭ম ওয়ানডে সেঞ্চুরির দিকে এগোচ্ছিলেন মুশফিক। কিন্তু শাহীন আফ্রিদির ফাঁদে পড়ে ৯৯ রানে আউট হন তিনি। শেষদিকে পাকিস্তানি বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ৪৮ ওভার পাঁচ বলে ২৩৯ রানে শেষ হয় বাংলাদেশের ইনিংস।

Leave A Reply

Your email address will not be published.