Banner Before Header

দেশভ্রমণে সেঞ্চুরির পথে কাজী আসমা

কাজী আসমা আজমেরী বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ট্রাভেলার্সদের মধ্য অন্যতম এক নাম। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ঘুরে ঘুরে বিশ্ববাসীকে তাক লাগিয়ে দেশভ্রমণের সেঞ্চুরি করতে যাচ্ছেন তিনি ।

যিনি ভ্রমনের মধ্য দিয়ে বিশ্বদরবারে বাংলাদেশের সাংস্কৃতি, প্রকৃতি, দেশের মানুষ সম্পর্কে জানান দিচ্ছেন। দেশভ্রমণে আর তিনটি দেশ ঘুরলেই তিনি সেঞ্চুরি করবেন। তার দুই চোখ ভরে উঠবে ১০০টি দেশ দেখার আলোয়।

ইতোমধ্যে ৯৭তম দেশ হিসেবে দাগিস্তানে অবস্থান করছেন তিনি।

কাজী আসমা আজমেরী ২০০৭ সালে প্রথম দেশ হিসেবে থাইল্যান্ডে দিয়ে ভ্রমণ যাত্রা শুরু করেন। এরপর  একে একে ভ্রমণ করেন বিশ্বের ৯৭টি দেশ।

কাজী আসমা আজমেরী এখন অবস্থান করছেন আজারবাইজানে। সেখান থেকে তিনি ১০০টি দেশ পূর্ণ করার উদ্দেশে দাগেস্তান,কাজাখস্তন, তুর্কমেনিস্তান এবং উজবেকিস্তানে যাবেন।

বাংলাদেশের পাসপোর্ট হওয়ার কারণে তার ভিসা পেতে সমস্যা হচ্ছে। তবু বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকার বাহন হিসেবেই ঘুরবেন বিশ্বময়।

আসমা খুলনা শহরে বড় হয়েছিলেন। কাজী গোলাম কিবরিয়া ও কাজী সাহিদা আহমেদ দম্পতি এক মাত্র মেয়ে আসমা।

আসমা বড় ইকবালনগর গার্লস হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাস করার পর এবং খুলনা মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করার পর তিনি ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগে স্নাতক করেন। উত্তর দক্ষিণ বিশ্ববিদ্যালয়ের একই বিষয়ে এমবিএ। আসমা এখন থাকেন অস্ট্রেলিয়ার পার্থে।

কাজী আসমা আজমারী বলেন, ‘আমি শৈল্পিকভাবে ইবন বেতুর, ঠাকুরমার ঝুলি, তেপান্তরের রাজ্যকন্যার গল্পে শুনে আমার শৈশবে কল্পনায় তাদের মনে মনে ভাবতাম। কিন্তু তারপর তাদের ছেড়ে দেওয়া যায় না। তাই আমি স্বাবলম্বী হওয়ার অপেক্ষায় ছিলাম।’

তার ইচ্ছে ২০১৮ সালের মধ্যে সে ১০০টি দেশ ভ্রমণ করা পূর্ণ করবে। আশা করি কাজী আসমা আজমেরী নিজের ইচ্ছা পূরণ করবেন খুব শিগগির। তার স্বপ্ন বাংলাদেশের পতাকা হাতে বিশ্বের বাকি সব দেশ ভ্রমণ করবেন! তার যাত্রা অব্যাহত থাকবে পৃথিবীর বাকি দেশের পথে পথে! সেই সাথে বাংলাদেশের সুনাম বয়ে চলবে তার বিশ্বভ্রমণ। ভ্রমণ বিশ্বে বাংলাদেশি হিসেবে ইতিহাস গড়বেন কাজী আসমা আজমেরী।

Leave A Reply

Your email address will not be published.