Banner Before Header

জীবনকে যাপনযোগ্য রাখার লড়াই, চলছে নিরন্তর

 

নজরুল কবির: একটা সময় ছিলো যখন নিজের, মানে ব্যক্তি ‘আমি’টাকেই কেন্দ্র করে ভাবনার নানারকম সুতোয় স্বপ্নের ঘুড়ি উড়াতাম। সে সব স্বপ্নময় ঘুড়ির কোনো কোনোটা বাস্তবতা কিংবা সমাজ অথবা রাস্ট্রের অপরাপর ঘটনা প্রবাহের করাল টানে ভোকাট্টা হয়ে যেত না মহাকালের অতলে, এমনটা নয় !
কিন্তু সে আমার একান্তই বোহেমিয়ান, টালমাটাল, ‘মিছিল মত্ত একলা যুবক’ সময়!
কালের অতিক্রান্ত স্রোতে সে-ই মিছিল মত্ত একলা যুবকের নানা ছেঁড়া-খোড়া স্বপ্নময় দিনগুলোকে (অনেকটা ‘জুয়া’ খেলার চ্যালেঞ্জের মতো) যৌথতায় আটকে দিতে এগিয়ে এলেন একজন। চেনা ছিলো, পরিচয়ও ছিলো – তবে জানাজানির আগেই মাত্র দেড়মাসে অনেকটা হুট করেই ‘ব্যক্তি’ আমিকে জীবনের অন্যরকম ‘যৌথ’তায় বাঁধতে এলেন তিনি।
সাহসী বটে !
তাঁর সাহসের কাছে হার মানতে হলো, আরো স্পর্ধিত সাহস রচনার মানসে !

ওই যে বললাম, অন্যরকম যৌথতার বন্ধনের কারণেই এলো আমাদের যৌথ জীবনের প্রথম স্বাক্ষর ‘যৌথ ‘!
জীবনকে যাপনযোগ্য রাখার জন্য জীবিকার নানামাত্রিক টানাপোড়েনের টান পড়ে যুথবদ্ধ জীবনলিপিতেও। সেটা কখনো কখনো অভিমান ছাড়িয়ে আস্থার চাদরেও যে দাগ ফেলেনি, তা নয় !
তবে ওই যে বল্লাম, স্বপ্নের ঘুড়ির গল্প। তেমনি আরেক রকম ঘুড়ির ঊর্নণাভ চক্করে পড়ে আস্থার চাদরের দাগ স্থায়ীত্ব পায়নি।
তাই যুথবদ্ধতার নবতর পালকে যুক্ত হতে এলো নতুন অতিথি ‘যুক্ত’।
আবারও শুরু হলো জীবনকে যাপনযোগ্য করে তোলার লড়াই…..
এভাবেই কেটে গেলো ১৫ টি বছর।

লড়াই চলমান এখনো। তবে ব্যক্তি ‘আমি’র এই লড়াইয়ে সঙ্গী শুধু ‘আমি’ নই। এখন ‘আমরা’। দু’জন থেকে লড়াইয়ের সহযাত্রী চারজন।
‘ডিজিটাল মন ও মননে’র যুগে জীবনযুদ্ধের লড়াইয়ে তা-ই শুধু একগুচ্ছ শুভ্র ‘দোলন চাঁপা’র গন্ধই আমাদের চারজনের যৌথ লড়া্ইকে আলোড়িত করে, বন্ধুদের সঙ্গে আদর্শ ও মর্যাদার সঙ্গে যুক্ত রাখতে !
ভালো থেকো বন্ধুরা…..যেন লড়াইটা জারি রাখতে পারি নিরন্তর ।

{ ছবিগুলো ঢাকার ‘ঐতিহাসিক’ পদ্মা স্টুডিওতে গত ২০১৭ সালে তুলেছিলেন প্রিয় আলোকচিত্র শিল্পী আক্কাস মাহমুদ }

Leave A Reply

Your email address will not be published.