Banner Before Header

২০২০-২১ সাল ‘মুজিব বর্ষ’: প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মের একশ বছর পূর্তি

২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত এই বর্ষ পালিত হবে।

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের যৌথসভার উদ্বোধনে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সারাদেশে বিভাগ, জেলা, উপজেলা ও ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত যেন এই কর্মসূচি পালিত হয়। সরকারিভাবেও আমরা কর্মসূচি পালন করবো। ইতোমধ্যে আমি মন্ত্রিপরিষদ সচিবের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বলেছি।২০২১ সালের ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করব। সেই পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর শতবার্ষিকী পালনের কর্মসূচি পালিত হবে।’

১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় জন্ম নেন জাতির জনক। তখন এই অঞ্চল ছিল ব্রিটিশ শাসনাধীনে। ১৯৪৭ সালে ভারত ও পাকিস্তান-দুই দেশের জন্মের মধ্য দিয়ে অবসান ঘটে ব্রিটিশ রাজের। আর পাকিস্তানের ২৪ বছরের শাসনের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বেই ১৯৭১ সালে স্বাধীন হয় বাংলাদেশ।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ২০২০ সালের পাশাপাশি ২০২১ সালও আওয়ামী লীগের কাছে অতীব গুরুত্বপূর্ণ এই কারণে যে, ওই বছর স্বাধীন বাংলাদেশেরও ৫০ বছর পূর্তি হচ্ছে। আর ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর ২০২০ ও ২০২১ সালে বাংলাদেশকে একটি পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে সরকার।

এর মধ্যে চলতি বছরের ডিসেম্বর অথবা আগামী জানুয়ারিতে হতে যাচ্ছে আগামী সংসদ নির্বাচন। ভোটে জিতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসতে পারলেই কেবল বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী আর বাংলাদেশের জন্মের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন করতে পারবে তারা পরিকল্পনামতো।

শেখ হাসিনা বলেন, “২০২০-২১ সাল ‘মুজিব বর্ষ’ হিসেবে পালিত হবে। বছরব্যাপী কর্মসূচি নিয়ে উদযাপিত হবে জন্মশতবার্ষিকী।

Leave A Reply

Your email address will not be published.