Banner Before Header

ইংল্যান্ডকে কাঁদিয়ে ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া

 

ইংল্যান্ডের শিরোপা জয়ের স্বপ্নটা ভেঙে দিলো ক্রোয়েশিয়া। এখন স্বপ্নভঙ্গের বেদনা নিয়েই ফিরতে হবে নিজদেশে।

এক গোলে পিছিয়ে থেকে সমতায় আনা। যেন এক গোল খেয়ে জেগে উঠেছিল ক্রোয়েটরা। শরীরের ভাষা হয়ে ওঠে আরো আক্রমণাত্মক। এরপর অতিরিক্ত সময়ে ইংল্যান্ডের জালে গোল করে বসে ক্রোয়েটরা।

নির্ধারিত সময় ৯০ মিনিটের খেলা ১-১ গোলে ড্র থাকার পর খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। এই অতিরিক্ত সময়েই মারিও মানজুকিচের অসাধারণ এক গোলে ইংল্যান্ডকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে গেলো ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপে তৃতীয় হওয়া ক্রোয়েশিয়া।

চলতি বিশ্বকাপে টানা চতুর্থ ম্যাচে প্রথমে এক গোল হজম করেও, পরে গোল দিয়ে ম্যাচে ফেরার নজির স্থাপন করল তারা। মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচের শুরুতেই গোল খেয়ে পিছিয়ে পড়া ক্রোয়েশিয়া দ্বিতীয়ার্ধে গোল শোধ করে ম্যাচ নিয়ে যায় অতিরিক্ত সময়ে। যার ফলে বেঁচে থাকে তাদের প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলার স্বপ্ন।

পুরো ম্যাচেই পরিসংখ্যানের নিজেদের আধিপত্য বজায় রাখে ক্রোয়েশিয়া। বল দখলে ইংল্যান্ডের ৪৫ শতাংশের বিপরীতে ক্রোয়েশিয়ার ছিল ৫৫ শতাংশ।

৫২ বছর আগে ১৯৬৬ সালে নিজেদের ইতিহাসের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ছাড়া আর কখনো বিশ্বকাপের ফাইনালেই উঠতে পারেনি ইংল্যান্ড।

 

 

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.